বিষন্নতা একটি গুরুতর মানসিক রোগ

বিষন্নতা একটি গুরুতর মানসিক রোগ

বিষণ্নতা একটি আবেগজনিত মানসিক রোগ। আমাদের চলার পথে কখনো কখনো কারনে অকারণে মন খারাপ হয়। পারিবারিক কিংবা ব্যক্তিগত জীবনের জটিলতা, প্রিয়জনের বিচ্ছেদ অথবা মৃত্যু আমাদের বিষাদগ্রস্ত করে তোলে। এটি প্রকৃতির নিয়মেই এক সময় সহনীয় হয়ে উঠে। আমরা আবার স্বাভাবিক জীবন যাপনে অভ্যস্ত হয়ে পড়ি। বিনা কারণে কিংবা সামান্য কারনে যদি বিষণ্নতা আসে এবং অনেকদিন ধরে থাকে তাহলে আমরা তাকে বিষণ্নতা রোগ বলে থাকি। এ রোগে আক্রান্ত ব্যক্তিরা সব সময় মন মরা থাকেন। যদি প্রশ্ন করা হয়, দিনের বেশীর ভাগ সময়, আপনার মন কেমন থাকে? তাহলে উত্তর আসে বেশীর ভাগ সময় তিনি বিষণ্ন থাকেন বা তার কিছু ভালো লাগেনা অথবা সে মনে শান্তি পায় না।

উন্নত বিশ্বে মন খারাপকে যতটা গুরুত্ব দেওয়া হয় আমাদের দেশের রোগীরা কিন্ত এ ব্যাপারটাকে ততটা গুরুত্ব দেয় না। অনেক সময় যে রোগী সে কষ্ট পায় কিন্ত কাছের লোকজন বুঝতেও পায় না। আমরা সাধারনত শারীরিক অসুস্থতা বা দূর্বলতাকে বেশি উল্লেখ করি। বিষণ্নতায় আক্রান্ত ব্যক্তিগণের সাধারণত কাজ কর্মের প্রতি আগ্রহ কিংবা কাজে আনন্দ থাকে না। ঠিকমত ঘুম হয় না। ক্ষুধা কমে যাবার ফলে দেহের ওজন কমে যায়। সব সময় তিনি ক্লান্তি ও শক্তিহীনতা বোধ করেন। কখনও অহেতুক অস্থিরতা কিংবা অতি মন্থরতা প্রকাশ করেন। রোগী নিজেকে সব সময় অযোগ্য ও অপরাধী বলে ভাবতে থাকেন। তার কোন কিছু চিন্তা করা কিংবা মনোযোগ দেয়ার ক্ষমতা কমে যায়। রোগী প্রায়শই সিদ্ধান্তহীনতায় ভোগেন। অনেক রোগী আত্মহত্যা করার কথা চিন্তা করেন। কারো কারো আত্মহত্যার চেষ্টা /প্রবণতা দেখা যায়। কেউ কেউ আত্মহত্যা করেও থাকেন।

গবেষণায় দেখা যায় শতকরা চল্লিশ ভাগ আত্মহত্যার কারণ হলো বিষণ্নতা রোগ। অথচ আমরা যদি প্রথমেই এই রোগ সনাক্ত করে সঠিক চিকিতসা গ্রহন করতে পারি তাহলে এই সমাজের অনেক মানুষের আত্মহত্যা প্রতিরোধ করতে পারি। বাংলাদেশসহ সারা পৃথিবীতেই বিষণ্নতারোধী ঔষধ সহজলভ্য হয়েছে। সঠিক মাত্রা আর মেয়াদ অনুযায়ী ডাক্তারের পরামর্শ মতো সেবন করলে বিষণ্নতা থেকে মুক্তি পাওয়া সম্ভব। সেই সাথে সাইকোথেরাপি/কাউন্সেলিং নিলে দ্রুত আরোগ্য লাভ সম্ভব।


প্রকাশিত মতামত লেখকের একান্তই নিজস্ব। মনের খবরের সম্পাদকীয় নীতি বা মতের সঙ্গে লেখকের মতামতের অমিল থাকতেই পারে। তাই মনের খবরে প্রকাশিত কলামের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো দায় নেবে না কর্তৃপক্ষ।