মনেরখবর-এর আয়োজনে ‘আসুন বিষণ্নতা নিয়ে কথা বলি’ শীর্ষক গোলটেবিল বৈঠক

মনেরখবর-এর আয়োজনে ‘আসুন বিষণ্নতা নিয়ে কথা বলি’ শীর্ষক গোলটেবিল বৈঠক

৭ এপ্রিল বিশ্ব স্বাস্থ্য দিবস ২০১৭ উপলক্ষ্যে বিশ্ব সাহিত্য কেন্দ্রে একটি গোলটেবিল বৈঠকের আয়োজন করে মানসিক স্বাস্থ্য বিষয়ক অনলাইন পোর্টাল মনেরখবরডটকম। ব্র্যাকের সহায়তায় ‘আসুন বিষণ্ণতা নিয়ে কথা বলি’ শীর্ষক গোল টেবিল বৈঠকে নাট্যব্যক্তিত্ব মামুনুর রশীদ, আজাদ আবুল কালাম, জাদুশিল্পী জুয়েল আইচ, বাংলাদেশ এসোসিয়েশন অব সাইকিয়াট্রিস্টস এর প্রাক্তন সভাপতি প্রফেসর ডা. এম এ সোবহান, বিএসএমএমইউ এর মনোরোগবিদ্যা বিভাগের চেয়ারম্যান প্রফেসর ডা. ঝুনু শামসুন্নাহার, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চিকিৎসা মনোবিজ্ঞান বিভাগের সাবেক চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. মাহমুদুর রহমান, বিআইইডি-এর রিসার্চ এসোসিয়েট এন্ড ফ্যাকাল্টি শাকিলা ইয়াসমিন, মনেরখবরের সম্পাদক সহযোগী অধ্যাপক ডা. সালাহ্উদ্দিন কাউসার বিপ্লব, মনোরোগ বিশেষজ্ঞ ডা. তৌহিদুল ইসলাম সহ বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ এবং গণমাধ্যম ব্যক্তিত্বরা উপস্থিত ছিলেন। গোলটেবিল বৈঠকটি সঞ্চালনা করেন সময় টেলিভিশনের বার্তা প্রধান তুষার আব্দুল্লাহ।  

আলোচনার শুরুতে স্বাগত বক্তব্যে মনেরখবরের সম্পাদক ডা. সালাহউদ্দিন কাউসার বিপ্লব মনেরখবরের পক্ষ থেকে সকল আলোচক এবং আমন্ত্রিত অতিথিদের ধন্যবাদ জানান এবং কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন। আমাদের দেশে মানসিক সমস্যা এবং এর চিকিৎসা সেবা অনেকাংশে অবহেলিত। অনেক সীমাবদ্ধতা সত্ত্বেও মানসিক স্বাস্থ্য সেবা এবং মানসিক স্বাস্থ্য বিষয়ে সচেতনতা তৈরির জন্য মনেরখবর কাজ করে যাছে উল্লেখ করে সকলকে নিজ নিজ জায়গা থেকে মানসিক স্বাস্থ্য সম্পর্কে জনসচেতনতা তৈরির আহ্বান জানান তিনি।

গোলটেবিল বৈঠকে আলোচকরা বিষণ্নতার কারণ, লক্ষণ, করণীয় ছাড়াও মানসিক স্বাস্থ্য সম্পর্কিত বিভিন্ন বিষয়ে আলোচনা করেন। আলোচনায় বক্তারা বলেন, বিষণ্ণতা নিয়ে কথা বলাটা সবচেয়ে জরুরি। ১৫-২৯ বছর বয়সীদের  আত্মহত্যার অন্যতম প্রধান কারণ বিষণ্ণতা এবং বাংলাদেশের মত দেশে শতকরা ৯০ ভাগ বিষণ্ণতায় আক্রান্ত ব্যক্তি চিকিৎসা সেবার বাইরে থাকে।

নাট্যব্যক্তিত্ব মামুনুর রশীদ বর্তমান সময়ের যন্ত্রসভ্যতা এবং ভার্চ্যুয়াল জগতের উপর অতি নির্ভরশীলতা মানুষের একাকিত্ব ও বিষণ্নতার অন্যতম কারণ হিসেবে উল্লেখ করে পরিবার ও সমাজের সদস্যদের সাথে সুসম্পর্ক স্থাপনের এবং স্কুল থেকেই শিশুদের বিভিন্ন মানসিক স্বাস্থ্য সমস্যা ও বিষণ্ণতার প্রতি লক্ষ্য রাখার আহ্বান জানান।

বিএসএমএমইউ-এর মনোরোগবিদ্যা বিভাগের চেয়ারম্যান প্রফেসর ডা. ঝুনু শামসুন্নাহার বলেন, ‘বিষণ্নতা যেকোনো সময়ে যেকোনো বয়সে হতে পারে এবং এর চিকিৎসা আছে। বিষণ্ণতা নিরসনে মন খুলে কথা বলার কোনো বিকল্প নেই’ । 

সামাজিক কুসংস্কার এবং মানসিক রোগ সম্পর্কে জনসচেতনতা তৈরির জন্য সবাইকে নিজ নিজ জায়গা থেকে এগিয়ে আসার আহবান জানান জাদুশিল্পী জুয়েল আইচ। তিনি আরো বলেন, অনেক উচ্চশিক্ষিত পরিবারের মধ্যেও মানসিক রোগ নিয়ে নানাবিধ কুসংস্কার রয়েছে যা মানসিক রোগের চিকিৎসাকে আরো বেশি কঠিক করে তুলছে।

নালন্দা স্কুলের প্রতিনিধি সিদ্দিক বেলাল বলেন, ‘২০ বছরের নিচে কারো বিষণ্নতা হয় না এমন একটি প্রচলিত ধারণা থেকে সকলকে বের হয়ে আসতে হবে।’

নাট্যব্যক্তিত্ব আজাদ আবুল কালাম তাঁর ব্যক্তিগত অভিজ্ঞতা বর্ণনা করে বলেন, ‘আমাদের স্কুলগুলো বিভিন্নভাবে বাচ্চাদের মানসিক সমস্যা তৈরির জন্য দায়ী। অনেক বাচ্চার কাছে বিদ্যালয় হলো একটি ভীতিকর স্থান। এক্ষেত্রে শিক্ষকদের দায় অনেক।‘

মনোবিজ্ঞানী ড. মাহমুদুর রহমান শিশুদের মানসিক স্বাস্থ্যকে গুরুত্ব দিয়ে বলেন, ‘একটি শিশু যে পরিবেশ বা পরিস্থিতিতে বড় হচ্ছে তাতে শিশুর মানসিক সমস্যার সম্ভাবনাকে বাড়িয়ে দিচ্ছে।’ এছাড়া তিনি স্কুলগুলোতে সাইকোলজিস্ট নিয়োগের প্রতি গুরুত্বারোপ করেন।

তুষার আব্দুল্লাহ বলেন, বর্তমানে ভোগবাদী সমাজব্যবস্থা বা সন্তানের আবদার মেটানোর প্রবণতা যেভাবে বৃদ্ধি পাচ্ছে এটি সমাজেরে জন্য একটি অশনি সংকেত।

বিআইইডি-এর রিসার্চ এসোসিয়েট এন্ড ফ্যাকাল্টি শাকিলা ইয়াসমিন তাঁর গবেষণার ফলাফল নিয়ে বলেন, প্রসব পরবর্তী প্রতি ১০০ জন মায়ের মধ্যে ৩৬ জনই বিষণ্নতা জনিত মানসিক রোগে ভুগে থাকেন। কিন্তু মানসিক সমস্যা নিয়ে কথা বলার তেমন সুবিধা না পাওয়ায় তারা অনেকাংশেই তা প্রকাশ করতে পারেন না।

এছাড়া আলোচকবৃন্দ ব্যক্তি ও কর্ম জীবনের অসম প্রতিযোগিতা থেকে বেরিয়ে এসে বাস্তব জীবনে সকলের সাথে সুসম্পর্ক স্থাপনের জন্য সকলের প্রতি আহ্বান জানান।

গোলটেবিল বৈঠকে মনোরোগ বিশেষজ্ঞ ডা. তৌহিদুল ইসলাম বিষণ্নতা ও মনেরখবর নিয়ে একটি পাওয়ারপয়েন্ট প্রেজেন্টেশন করেন। এবং অনুষ্ঠান শেষে বক্তাদের বক্তব্যের সারমর্ম তুলে ধরেন।

ছবি-



প্রতিবেদক, মনেরখবর.কম


লক্ষ্য করুন- মানসিক স্বাস্থ্য বিষয়ক খবর বা প্রেস রিলিজও আমাদের পাঠাতে পারেন। বৈজ্ঞানিক সেমিনার, বিশেষ ওয়ার্কশপ, সাংগঠনিক কার্যক্রমসহ মানসিক স্বাস্থ্য বিষয়ক যে কোনো খবর পাঠাতে news@monerkhabor.com এই ইমেইলটি ব্যবহার করতে পারেন আপনারা।