মূল পাতা / সংবাদ / জাতীয় মানসিক স্বাস্থ্য ইনস্টিটিউটে অটিজম সচেতনতা দিবস উপলক্ষে বৈজ্ঞানিক সেমিনার অনুষ্ঠিত

জাতীয় মানসিক স্বাস্থ্য ইনস্টিটিউটে অটিজম সচেতনতা দিবস উপলক্ষে বৈজ্ঞানিক সেমিনার অনুষ্ঠিত

২ এপ্রিল ছিলো বিশ্ব অটিজম সচেতনতা দিবস। এ উপলক্ষে ৩ এপ্রিল জাতীয় মানসিক স্বাস্থ্য ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালে একটি বৈজ্ঞানিক সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়েছে। জাতীয় মানসিক স্বাস্থ্য ইনস্টিটিউট ও   বাংলাদেশ এসোসিয়েশন ফর চাইল্ড এন্ড এডোলেসেন্ট মেন্টাল হেলথ (বিএসিএএমএইচ) যৌথভাবে এই বৈজ্ঞানিক সেমিনারের আয়োজন করে। সহায়তা করেছে ইনসেপটা ফার্মাসিউটিক্যালস। ‘অটিজম: এডভোকেট এডুকেট লাভ একসেপ্ট’ টপিক নিয়ে ছিলো এই সেমিনার।

জাতীয় মানসিক স্বাস্থ্য ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালের কনফারেন্স হলে অনুষ্ঠিত এ সেমিনারে স্বাগত বক্তব্য দেন বাংলাদেশ এসোসিয়েশন ফর চাইল্ড এন্ড এডোলেসেন্ট মেন্টাল হেলথের সাধারণ সম্পাদক মনোরোগ বিশেষজ্ঞ ডা. হেলাল উদ্দিন আহমেদ। মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন মনোরোগ বিশেষজ্ঞ ডা. নিয়াজ মোহাম্মদ খান। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন আর্মড ফোর্সেস মেডিকেল কলেজের মনোরোগবিদ্যা বিভাগের অধ্যাপক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল ডা. মো: আজিজুল ইসলাম, বাংলাদেশ এসোসিয়েশন অফ সাইকিয়াট্রির সাধারণ সম্পাদক মনোরোগ বিশেষজ্ঞ ও কথাসাহিত্যিক ডা. মোহিত কামাল, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের মনোরোগবিদ্যা বিভাগের অধ্যাপক ডা. এম এস আই মল্লিক, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের মনোরোগবিদ্যা বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ডা. ঝুনু শামসুন্নাহার। প্রধান অতিথি ছিলেন বাংলাদেশ এসোসিয়েশন ফর চাইল্ড এন্ড এডোলেসেন্ট মেন্টাল হেলথের সভাপতি ডা. এম এ সালাম। সভাপতিত্ব করেন জাতীয় মানসিক স্বাস্থ্য ইনস্টিটিউটের পরিচালক অধ্যাপক ডা. ফারুক আলম। ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন ইনসেপটা ফার্মাসিউটিক্যালসের কর্মকর্তা আশরাফ উদ্দিন আহমেদ।

প্রধান অতিথির বক্তৃতায় ডা. এম এ সালাম বলেন, ‘‘শিশুদের মধ্যে অটিজম শনাক্ত হলে ডাক্তারদের উচিত ধাপে ধাপে শিশুর পিতা-মাতাকে সংবাদটি জানানো, কারণ এতে পিতা-মাতা খুব মন খারাপ করেন। অটিজম চিকিৎসায় সাইকিয়াটিস্টের বাইরে অন্য ডাক্তাররা বেশির ভাগ ক্ষেত্রে চিকিৎসা দেন, এটা দুঃখজনক। আমাদের দেশে অটিজম বিষয়ে বিশেষ প্রশিক্ষণের অপ্রতুলতা রয়েছে। এই বিশেষ প্রশিক্ষণ ব্যয়বহুল। এ বিষয়ে প্রশিক্ষণ বাড়িয়ে জনসচেতনতাও বাড়াতে হবে।’’

সভাপতির বক্তৃতায় ডা. ফারুক আলম বলেন, ‘‘অটিজমে আক্রান্তদেরকে কখনোই অটিস্টিক বলা যাবে না। তাদেরকে অটিজমে আক্রান্ত ব্যক্তি বলতে হবে। অটিজম নিয়ে সচেতনতার অভাব ছিলো। প্রধানমন্ত্রীর কন্যা সায়মা ওয়াজেদের নেতৃত্বে বিশ্বব্যাপী অটিজম নিয়ে সচেতনতা বাড়ছে। জাতীয় মানসিক স্বাস্থ্য ইনস্টিটিউট গত ছয় মাসে এ বিষয়ে বিশটি ট্রেনিংয়ের আয়োজন করেছে। অটিজম নিয়ে সচেতনতা বাড়াতে সামনেও আমাদের নানা পরিকল্পনা রয়েছে।’’

প্রতিবেদক, মনেরখবর.কম


লক্ষ্য করুন- মানসিক স্বাস্থ্য বিষয়ক খবর বা প্রেস রিলিজও আমাদের পাঠাতে পারেন। বৈজ্ঞানিক সেমিনার, বিশেষ ওয়ার্কশপ, সাংগঠনিক কার্যক্রমসহ মানসিক স্বাস্থ্য বিষয়ক যে কোনো খবর পাঠাতে news@monerkhabor.com এই ইমেইলটি ব্যবহার করতে পারেন আপনারা।