নিউক্যাসেল ইউনির্ভাসিটির উদ্যোগে বিএসএমএমইউ’তে সিপিডি অনুষ্ঠিত 1

নিউক্যাসেল ইউনির্ভাসিটির উদ্যোগে বিএসএমএমইউ’তে সিপিডি অনুষ্ঠিত

নর্থ ইস্ট ইংল্যান্ড সাউথ এশিয়া মেন্টাল হেলথ অ্যালায়েন্স NEESAMA (নিসামা) এর উদ্যোগে নিউক্যাসেল ইউনিভার্সিটি’র আয়োজনে  বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালেয় Continuing Professional Development (CPD) অনুষ্ঠিত হয়েছে।

আজ  (২৩ অক্টোবর) বঙ্গবন্ধু মেডিকেলের মূল হল, ডা. মিলন হল এবং মিল্টন হলে একযোগে তিনটি করে মোট ছয়টি সেশন অনুষ্ঠিত হয়।

এদিন সকাল ৯টায় ডা. মিলন হলে সিপিডি এর উদ্বোধন করা হয়। উদ্বাধনী অনুষ্ঠানে ব্রিটিশ কাউন্সিলের ডেপুটি ডাইরেক্টর এন্ড্রু নিউটন, ঢাকায় নিযুক্ত ব্রিটিশ হাইকমিশনের ডেপুটি হাইকমিশনার ক্যানবার হোসেইন বোর, বিএসএমএইউ উপাচার্য অধ্যাপক ডা. কনক কান্তি বড়ুয়া, উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ডা. শহিদুল্লাহ শিকদার, বিএসএমএইউ এর মনোরোগবিদ্যা বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ডা. সালাহ্‌উদ্দিন কাউসার বিপ্লব সহ বাংলাদেশে নিযুক্ত ব্রিটিশ হাইকমিশনের উচ্চপদস্থ কর্মকর্তা, নিউক্যাসেল ইউনির্ভাসিটি এবং নিসামার দায়িত্বপ্রাপ্ত ব্যক্তিবর্গ ও বিএসএমএমইউ এর মনোরোগবিদ্যা বিভাগের শিক্ষকমন্ডলী, দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে আগত সাইকিয়াট্রিস্টবৃন্দ ছাড়াও সিপিডিতে অংশগ্রহণকারীরা উপস্থিত ছিলেন।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন নিউক্যাসেল ইউনির্ভাসিটির ক্লিনিক্যাল সিনিয়র লেকচারার ডা. আদিত্য শর্মা।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বিএসএমএইউ এর মনোরোগবিদ্যা বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ডা. সালাহ্‌উদ্দিন কাউসার বিপ্লব বলেন, “আমাদের দেশে মেন্টাল হেলথ একটি অবহেলিত বিষয়। তবে বিএসএমএমইউ প্রশাসনের সহযাগীতায় মনোরোগবিদ্যা বিভাগের শিক্ষকদের ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় দেশের মানসিক স্বাস্থ্য উন্নয়নে ইতোমধ্যে অনেক উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে, যা আগামীতেও অব্যাহত থাকবে।

নিজের বক্তব্যে উপাচার্য অধ্যাপক ডা. কনক কান্তি বড়ুয়া সিপিডি আয়োজনের জন্য নিসামাকে অভিনন্দন জানানোর পাশাপাশি এই আয়োজন দেশের মানসিক স্বাস্থ্য বিষয়ক সচেতনতা সৃষ্টিতে ভূমিকা রাখবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

যুক্তরাজ্যের মানুষ মানসিক স্বাস্থ্যের সচেতন থাকলেও বাংলাদেশের মানুষ এবিষয়ে কুসংস্কারে বিশ্বাস করে।  দুটি দেশের মধ্যে সম্পর্ক খুবই ভালো। যুক্তরাষ্ট্র সবসময় চায় বাংলাদেশের শিক্ষা ও গবেষণা খাতে উল্লেখযোগ্য অবদান রাখতে। এই সিপিডি তারই প্রমান বলে মন্তব্য করেন  ক্যানবার হোসেইন বোর।

সিপিডিতে অনেক দক্ষ ট্রেইনাররা অংশগ্রহণ করছেন। এটি দুই দেশের মধ্যে মানসিক স্বাস্থ্য নিয়ে আরো বেশি কাজ করার সুযোগ করে দিয়েছে এবং আগামীতে বাংলাদেশের মানসিক স্বাস্থ্য উন্নয়নে বৃটিশ কাউন্সিলেরে পক্ষ থেকে আরো কার্যক্রম গ্রহণ করা হবে বলে জানান কাউন্সিলের ডেপুটি ডাইরেক্টর এন্ড্রু নিউটন।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের পর সকাল এবং বিকাল দুই ধাপে তিনটি করে সিপিডি সেশন অনুষ্ঠিত হয়। অনলাইনে বিনামূল্যে রেজিষ্ট্রেশনের মাধ্যমে মানসিক স্বাস্থ্যসেবা সংশ্লিষ্ট  ৫৭১ জন সিপিডি’তে অংশগ্রহণ করেন।

সকালে অনুষ্ঠিত Suicide ‍& Self Harm শীর্ষক সেশনটি পরিচালনা করেন যুক্তরাষ্ট্রের জ্যাকি রজার্স এবং পাকিস্তানের শাবহাত হাক্কানী।  Education for mental health professionals শীর্ষক সেশনটিপরিচালনা করেন ভারতের শেখর শেষাদ্রী এবং বাংলাদেশের এম এস আই মল্লিক। Depression across the lifespan শীর্ষক সেশনটি পরিচালনা করেন যুক্তরাষ্ট্রের হামিশ ম্যাক অ্যালিস্টার উইলিয়াম এবং আদিত্য শর্মা।

বিকালে People living in disadvantaged situations শীর্ষক সেশনটি পরিচালনা করেন বাংলাদেশের নায়লা খান এবং ভারতের শেখর শেষাদ্রী। Dementia শীর্ষক সেশনটি পরিচালনা করেন যুক্তরাষ্ট্রের স্টেলা মারিয়া প্যাডিক এবং রিচার্ড ওয়াকার। Substance misuse শীর্ষক সেশনটি পরিচালনা করেন যুক্তরাষ্ট্রের ক্রিস্টোফার স্মার্ট এবং বাংলাদেশের হেলাল উদ্দিন আহমেদ।

সমগ্র আয়োজনের সমন্বয়ক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের মনোরোগবিদ্যা বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ডা. সালাহ্‌উদ্দিন কাউসার বিপ্লব, নিউক্যাসেল ইউনির্ভাসিটির সাইকোলজি এ্যান্ড মেন্টাল হেলথ বিভাগের অধ্যাপক জ্যাকি রজার্স এবং নিউক্যাসেল ইউনির্ভাসিটির ক্লিনিক্যাল সিনিয়র লেকচারার ডা. আদিত্য শর্মা।