মূল পাতা / প্রতিদিনের চিঠি / পৃথিবীর জীবনটা আর ভালো লাগে না

পৃথিবীর জীবনটা আর ভালো লাগে না

আমাদের প্রতিদিনের জীবনে ঘটে নানা ঘটনা, দূর্ঘটনা। যা প্রভাব ফেলে আমাদের মনে। সেসবের সমাধান নিয়ে ’‘প্রতিদিনের চিঠি’ বিভাগ।  এই বিভাগে প্রতিদিনই আসছে নানা প্রশ্ন। যেগুলোর উত্তর দিচ্ছেন অধ্যাপক ডা. সালাহ্‌উদ্দিন কাউসার বিপ্লব। আমাদের আজকের প্রশ্ন পাঠিয়েছেন রুস্তম আলী। যিনি  এর আগেও প্রশ্ন পাঠিয়েছিলেন-

প্রতিদিনের চিঠি

চিঠি

প্রেসক্রাইবের জন্য ধন্যবাদ স্যার।  আমি আবারও ডিটেইলস বলছি। আমি মাইগ্রেন এ ভুগতে ভুগতে এখন আমি একজন ওসিডি এবং ডিপ্রেশনের, ডায়াবেটিসের রোগী। বয়স ৩৯ বছর। আমার পৃথিবীর জীবনটা আর ভাল লাগে না। কিন্তু সবাই চাই পৃথিবীতে দীর্ঘ দিন বাচতে কিন্তু আমার এ রকম ইচ্ছা হয় না। আমার ইচ্ছা হয় ঈমানের সহিত দ্রুত মরে যেতে। স্যার , আমি বর্তমানে ইন্ডাস্ট্রিয়াল সেক্টরে চাকুরী করি। আমি জানি শব্দের মধ্যে থাকলে মাইগ্রেনের ব্যথা বেশি উঠে। কিন্তু চাকুরী ও তো করতে হবে। মাইগ্রেনের ব্যথা উঠলে নোমি (Nomi-2.5) অর্ধেক খাই। নোমি ছাড়া অন্য কোন ওষুধে কাজ হয় না। মাইগ্রেন ও ওসিডি এর জন্য ধানমন্ডির ফিরোজ স্যার (বর্তমানে মরহুম), মানসিক হাসপাতালের মোহিত কামাল স্যার কে বিভিন্ন সময় দেখানোর পর দীর্ঘ দিন (প্রায় ৪ বছর) ওডিসির ওষুধ খাওয়ার পর ডায়াবেটিস ধরা পড়ল। ব্যায়াম ও খাবারদাবার নিয়ন্ত্রণের মাধ্যমে ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে রাখি। কিন্তু কনটিনিউয়াস মাইগ্রেনের ও ওসিডি এর ওষুধ খেলে (pizotifen, flunarizine, anfranil,amitriptyline, sertraline, rivotril, escitalopram, etc………….) ডায়াবেটিস অর্থাৎ সুগার লেভেল বেড়ে যায়। কিন্তু মাথাব্যথা শুরু হলে নোমি না খেলে মাথা ব্যথা ভাল হয় না। আবার নোমির সাইডএফেক্ট খুবই বেশি। আমি কি ওষুধ খেলে ডায়াবেটিস না বেড়ে মাথাব্যথা (মাইগ্রেন) নিয়ন্ত্রণে থাকবে। জানালে খুবই উপকৃত হবো এবং আপনার জন্যে দোয়া করব।

 

উত্তর

আগে পাঠানো উত্তরটা আবার দেখুন। লিংক- https://www.monerkhabor.com/daily-letters/2018/11/29/13961/

আমি বলেছি ডায়াবেটিস, ওসডি’র সাথে বিষণ্ণতা এবং মাইগ্রেন তিনটি বিষয়ের চিকিৎসা আপনাকে আলাদা আলাদা ভাবে করতে হবে। মাইগ্রেনের জন্য বেশ কিছু নিয়ম কানুন এবং ওষুধও আপনার জন্য পরামর্শ করা হয়েছে। আপনার ডায়াবটিস নিয়ন্ত্রনে আছে সেটা অবশ্যই একটি ভালো কথা। মাইগ্রেন বিষয়টিও নিয়ন্ত্রনে রাখা সম্ভব। সামান্য কিছু ওষুধ আপনাকে খেতে হবে। সেই সাথে নিয়ম কানুন। তবে এই মুহুর্তে হয়তো সম্পূর্ণ নিরাময় সম্ভব নাও হতে পারে। অনেক গবেষক বলেন মাইগ্রেন ৪৫ বছরের পর থেকে কমে আসে। সত্যি বলতে কি, আমি নিজেও মাইগ্রেনের রোগী। আগের লেখার উল্লেখিত নিয়ম কানুন মনে চলার চেষ্টা করুন। আমার মাইগ্রেন সমস্যা মোটামুটি নিয়ন্ত্রনেই থাকে। আগের উত্তরটি আবার ভালো করে দেখুন। আপনার জন্য লিংক দেয়া হলো। না বুঝলে বা কোনো কনফিউশন থাকলে সরাসরি দেখা করুন।

ধন্যবাদ, সুস্থ থাকুন মনেপ্রাণে।

ইতি,
প্রফেসর ডা. সালাহ্উদ্দিন কাউসার বিপ্লব
  • চেয়ারম্যান ও অধ্যাপক - মনোরোগবিদ্যা বিভাগ, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়।
  • সেকশন মেম্বার - মাস মিডিয়া এন্ড মেন্টাল হেলথ সেকশন অব 'ওয়ার্ল্ড সাইকিয়াট্রিক এসোসিয়েশন'।
  • কোঅর্ডিনেটর - সাইকিয়াট্রিক সেক্স ক্লিনিক (পিএসসি), মনোরোগবিদ্যা বিভাগ, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়।
  • সাবেক মেন্টাল স্কিল কনসাল্টেন্ট - বাংলাদেশ ন্যাশনাল ক্রিকেট টিম।
  • সম্পাদক - মনের খবর। চেম্বার তথ্য - ক্লিক করুন