মূল পাতা / প্রতিদিনের চিঠি / সে ছোটবেলা থেকে ইসলামের আর্দশে নিজেকে গড়ে তুলেছে

সে ছোটবেলা থেকে ইসলামের আর্দশে নিজেকে গড়ে তুলেছে

আমাদের প্রতিদিনের জীবনে ঘটে নানা ঘটনা, দুর্ঘটনা। যা প্রভাব ফেলে আমাদের মনে। সেসবের সমাধান নিয়ে ‘প্রতিদিনের চিঠি’ বিভাগ। এই বিভাগে প্রতিদিনই আসছে নানা প্রশ্ন। যেগুলোর উত্তর দিচ্ছেন অধ্যাপক ডা. সালাহ্‌উদ্দিন কাউসার বিপ্লব। আমাদের আজকের প্রশ্ন পাঠিয়েছেন তৌহিদুর রহমান (ছদ্মনাম) –

প্রতিদিনের চিঠি

চিঠি

আমার বয়স ২৬। একটা বেসরকারি পাওয়ার কোম্পানিতে সহকারী ইঞ্জিনিয়ার হিসেবে আছি। ফেসবুকের মাধ্যমে একজন ধার্মিক মেয়ের সাথে ফ্রেন্ডশিপ হয়। সে ছোটবেলা থেকে নাকি ইসলামের আর্দশে নিজেকে গড়ে তুলেছে। কিন্তু ভার্সিটি উঠার পর তার সামান্য একটু ভাটা পড়ে,তারপরও সে নিজেকে সহনশীলতায় রাখতো। মেয়েটা আমাকে ৩ মাসের মধ্যে নিজে থেকে প্রপোজ দেয়,আমি সাথে সাথে রিজেক্ট করি; পরে মেয়েটা তার লাইফের অনেক কষ্ট আর ভয়ংকর অভিজ্ঞতার কথা বলায় আমি তাকে একসেপ্ট করি। আমি ৩-৪ বার তার ভার্সিটি গিয়ে তার সাথে দেখা করি; কিন্তু আমরা কখনো একে অপরের হাত ধরি নাই। কিন্ত সে ফেসবুকে আমাকে তার আনলিমিটেড ছবি এবং সাথে তার কিছু খুব সেনসিটিভ ছবিও দিত নিজ ইচ্ছায়, আর আমার সাথে সে স্বামী স্ত্রীর মতো ব্যবহার করতো আর আমাকে সব সময় ইন্সপায়ার করতো আর তার কোরান হাদীসে অনেক জ্ঞান ছিল। আরেকটা কথা বলি,সে বলেছিল ভার্সিটির উঠার সময় তার সাথে একটা ছেলে প্রতারণা করে, কারণ ছেলেটা ছিল বিবাহিত, পরে একটা ছেলে তাকে বিয়ে করতে চায়, যে ছিল ডাক্তার কিন্তু ছেলের নাকি ডায়াবেটিস থাকায় তার ফ্যামিলি রিজেক্ট করে। যাইহোক, এই মেয়ের সাথে আমার ১০ মাস ধরে রিলেশন। কিন্তু গত ৩ দিন আগে সে আমাকে জানায় সে নাকি মুড সুইং এর কারণে সিংগেল হতে চায়; আরেকবার বলে তার নাকি বিয়ে ঠিক হয়েছে, আবার আরেকবার বলে সে নাকি ভুল করেছে, ইসলামে প্রেম হারাম, যিনা। সে একা থাকতে চায়, বিয়ে করতে চায় না ইত্যাদি। এখন সে আমার সাথে এক নিমিষেই রিলেশন ব্রেক করে দিলো। আমি ছোটবেলা থেকে লাজুক, কারো উপর রাগি না, কিছুই বলতে পারলাম না, আমার কিছু দোষ ছিল সেটা হলো,আমি gre পড়াশোনার জন্য তাকে রাতে বেশি সময় দিতাম না, খবর নিতাম না গত ২ মাস ধরে। আর তার ইচ্ছা ছিল আমি যাতে বিসিএসের জন্য পড়ি। এখন আমি খুব ভেঙে পড়েছি। আমি gre ৩০৮ পেয়ে usa এর জন্য ট্রাই করছি। কিন্তু এই মেয়ের এই ডিসিশন এ আমি অফিস + সব কিছুতে আগ্রহ হারিয়ে ফেলছি। আমি বুঝছি না; মেয়েটা কি আমাকে টাইম পাস হিসেবে ব্যবহার করেছে নাকি তার লাইফে বেটার কেউ এসেছে নাকি ওই ডাক্তার ফিরে এসেছে। আমি তো তার কাছে যাইনি, সে নিজের প্রয়োজনে ব্যবহার করলো। আমি কিছুই বুছতে পারছি না,ফ্যামিলির কারো সাথে শেয়ার ও করতে পারছি না, ২৬ বছরের জীবনে এতটা অসহায় লাগে নাই; নীরবে সব সহ্য করে যাচ্ছি। এমতাবস্থায় কি করবো বুজতে পারছি না। অনেকে বলবেন, মেয়েটাকে বিয়ে করেন, কিন্তু মেয়েটার ইচ্ছে তার ভালবাসার মানুষ বিসিএস হয়, এবং এটার জন্য সে আমাকে উপদেশ দিত। কিন্তু এখন মনে হচ্ছে সে আমাকে ব্যবহার করলো। আমার সব কিছু থেকে মনে হচ্ছে আমি নিঃস্ব। আমার কোন কিছুই ভাল লাগছে না।

উত্তর

আপনার লেখাটা পড়ে একসাথে অনেক কথাই মনে পড়ছে। আপনার আবেগ দিয়ে লেখা এই চিঠিতে অনেক গুলো দিক ব্যাখ্যা, বিশ্লেষন এবং উল্লেখ করার বিষয় মতো আছে। আলাদা আলাদা করে প্রত্যেকটি বিষয় সম্বন্ধেই কিছু বলা যায়। আবার আপনার নিজের বিষয় নিয়েও কিছু বলা যায়। যা হোক, প্রথম কথা হলো মেয়েটির বিষয়ে আপনার আরো ভালো করে জানার দরকার ছিলো। মেয়েটি আপনার সাথে কেন সম্পর্ক করতে চাইছিলৈা বা করলো। আরো একটি বিষয় এখানে স্পষ্ট, বিশ্ববিদ্যালয় জীবনের শুরুতেই মেয়েটির  একজনের সাথে সম্পর্ক ছিলো সেটা ব্রেক আপ হয়েছে, আরেকজনের সাথে বিয়ে ঠিক হয়েছিলো সেটা সে করে নাই, আবার আপনার সাথে সম্পর্ক তখনই আপনার ভাবা উচিত ছিলো- মেয়েটি আসলে কতটুকু স্থির! একদিকে বলছেন, ধার্মিক। ধর্ম জ্ঞানও তার প্রচুর, আবার সে সেনসেটিভ ছবি আপনার সাথে শেয়ার করতো ফেইসবুকে- এসব বিষয়গুলিও একটু পরস্পর বিরোধী।

মেয়েটি তিন মাসের ভিতরই আপনাকে প্রপোজ করলো, আপনি না করলেন। আবার মেয়েটি আপনাকে তার জীবনের গল্প শুনালো, সেসব শুনে আপনি রাজি হয়ে গেলেন। এখানেও কথা আছে, মেয়েটি যে কষ্ট আর অভিজ্ঞতার কথা বললো সেগুলিই বা কতটুকু সত্য। সত্যি যদি হয়ে থাকে, আপনার উপর যদি ভরসা করেই থাকে তাহলে তো আপনাকে এখন বাদ দেয়ার কথা না। আপনি বলছেন, মেয়েটি আপনাকে ব্যবহার করছে। আমার প্রশ্ন মেয়েটি আপনাকে ব্যবহার করবে কেন? বা আপনি নিজেই তার ব্যবহারের বস্তু হতে যাবেন কেনো? এসব বিষয় সবারই খেয়াল রাখা উচিত। আপনার এই চিঠির মাধ্যমে এই দিকটি আমি অন্যদেরকে সতর্ক হওয়ার জন্য উল্লেখ করলাম। যা হোক, এখানে আরো একটা বিষয় উল্লেখ করার মতো সেটি হচ্ছে, মেয়েটি বিসিএস প্রার্থীকে পছন্দ করতো। আর আপনি জিআরই দিয়ে বিদেশ যেতে চাইছেন। আমার মনে হয়, এটিও একটি বিষয়। মেয়েটি হয়তো বিদেশ যেতে চায়না। তারও নিশ্চয়ই কারণ আছে। কেন সে দেশেই থাকতে চায়। আপনার উচিত ছিলো, সেসব বিষয়ই ভালো করে খেয়াল করা বা আলোচনা করা, জানা।

আপনার মন খারাপ হওয়ার যথেষ্ট কারণ আছে। তবে পুরা ঘটনাটির বা মেয়েটির এই পিছু হটার, পিছনের সঠিক যুক্তি বা কারণ যদি আপনি আবিষ্কার করতে পারেন দেখেবেন দ্রুতই আপনি রিলিফ বা যন্ত্রনার নিয়ন্ত্রনে আসবে। আপনার প্রথম কাজ হলো, কেনো সে এমন করছে তার প্রকৃত এবং সঠিক যুক্তিটি আবিষ্কার করার চেষ্টা করা। সঠিক কারণ জানতে পারলে নিজেকে বোঝাতে এবং মানাতে সুবিধা হবে। এমন কি আপনার নিজের যদি কিছু করার থাকে তথন সেটাও করতে পারবেন। যদি নিজের কোনো বিশেষ চিন্তা, অবস্থান বা কাজ যদি পরিবর্তন বা আলোচনা করার মতো থাকলে সেটা করতে পারবেন। মেয়েটি তিনটি কথাই বলেছে, মুড সুইং – একা থাকতে চায়, বিয়ে হয়ে যাচ্ছে এবং ধর্মের কথা বলছে। বিষয় যাই হোক সঠিক তথ্য জানার চেষ্টা করেন। আরো একটি বিষয় এখানে গুরুত্বপূর্ণ সেটি হচ্ছে সময় । আপনি উল্লেখ করেছেন, মেয়েটি আপনাকে না করেছে মাত্র তিন দিন হয়েছে। তিন দিনে আসলে তেমন কোনো সিদ্ধান্ত নেয়া যায় না। মেয়টারও কোনো ভুল হতে পারে। যেকোনো বিষয়ে গুরুত্বপূর্ণ সিন্ধান্ত নিতে গেলে মনে হয় আরো একটু সময়েরে দরকার হয়। তাই চূড়ান্ত কিছু ভাবার সময়ও মনে হয় এখনো আসে নাই।

তাই আবার বলি, সিন্ধান্ত নেয়ার আগে ভালো করে ভেবেই সিদ্ধান্ত নেয়া ভালো। কেউ তার বিপদের কথা বললে শুনবো, তাকে সাহায্য করবো। কিন্তু নিজের বিষয়টিও মনে রাখা জরুরি, কতটুকু করতে পারবো আর কতটুকু পারবো না। সত্যিই যদি মেয়েটি যা বলেছে, তাই করে তবে আপনাকেও সঠিক যুক্তি বের করে সেই মতোই সিদ্ধান্ত নিতে হবে। প্রয়োজনে কাছের এবং বিশ্বস্ত বন্ধুদের সাথে আলাপ করে সেই যুক্তিও খুঁজতে পারেন। তারপরেও সমস্যা হলে সরাসরি যোগাযোগ করুন। সমস্যার দ্রুত সমাধান হবে সেই কামনা করছি।

**দ্রষ্টব্য: প্রতিদিনের চিঠির সকল উত্তর কেবল প্রাথমিক পরামর্শ হিসেবে দেওয়া হয়।  চিকিৎসকের সাথে সাক্ষাতে চূড়ান্ত পরার্মশ  নিন।

ইতি,
প্রফেসর ডা. সালাহ্উদ্দিন কাউসার বিপ্লব
  • চেয়ারম্যান ও অধ্যাপক - মনোরোগবিদ্যা বিভাগ, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়।
  • সেকশন মেম্বার - মাস মিডিয়া এন্ড মেন্টাল হেলথ সেকশন অব 'ওয়ার্ল্ড সাইকিয়াট্রিক এসোসিয়েশন'।
  • কোঅর্ডিনেটর - সাইকিয়াট্রিক সেক্স ক্লিনিক (পিএসসি), মনোরোগবিদ্যা বিভাগ, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়।
  • সাবেক মেন্টাল স্কিল কনসাল্টেন্ট - বাংলাদেশ ন্যাশনাল ক্রিকেট টিম।
  • সম্পাদক - মনের খবর। চেম্বার তথ্য - ক্লিক করুন