মূল পাতা / ফিচার / শিশু কিশোরদের গুরুত্বপূর্ণ মানসিক সমস্যা কন্ডাক্ট ডিজঅর্ডার- শেষ পর্ব

শিশু কিশোরদের গুরুত্বপূর্ণ মানসিক সমস্যা কন্ডাক্ট ডিজঅর্ডার- শেষ পর্ব

১ম পর্ব পড়তে এখানে ক্লিক করুন

কন্ডাক্ট ডিজঅর্ডারের কারণ কি?

অনেক ধরনের কারণ উল্লেখ করা হলেও অদক্ষ অভিভাবকত্বকেই মূল হিসেবে দায়ী করা হয়। এছাড়া পারিবারিক, সামাজিক পরিবেশও কন্ডাক্ট ডিজঅর্ডারের বড় কারণ। জন্মগতভাবে অপরাধ প্রবণ হয়ে উঠার আশঙ্কাকেও কেউ কেউ বিশেষ গুরুত্ব দিয়ে উল্লেখ করেছেন। লারনিং ডিজএ্যবিলিটি বা বুদ্ধির অপ্রতুলতা (মৃদু বুদ্ধিপ্রতিবন্ধি) এবং এডিএইচডি নামের অন্য মানসিক রোগকেও কেউ কেউ কন্ডাক্ট ডিজঅর্ডারের কারণ হিসেবে দেখিয়েছেন। জেনেটিক বা হরমোনাল কিছু কারণও পিছনে কাজ করতে পারে।

অভিভাবকত্ব বা প্যারেন্টিং এর গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হিসেবে, শাস্তি প্রদান (পানিশম্যান্ট) ও পুরস্কৃত (রিওয়ার্ড) করার পদ্ধতির ত্রুটির উপর বেশি জোড় দেয়া হয়েছে। অর্থাৎ কখন, কতটুকু, কিভাবে শাস্তি বা পুরস্কৃত করা উচিত, সেসবের উপর শিশু কিশোরদের আচরণ শিক্ষার অনেক কিছু নির্ভর করে। এসব বিষয়ে নিজের ইচ্ছা বা মানসিক অবস্থার উপর ভিত্তি না করে, শিশুটির বয়স ও মানসিক দিক নজর দেয়া উচিত।

কন্ডাক্ট ডিজঅর্ডারের পরিণতি

সময়মতো ও প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ না নিতে পারলে শিক্ষা সামাজিক দক্ষতা সহ বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই তাদের পারফরমেন্স নিম্নগামী হতে থাকে । তাছাড়া সামাজিক ভাবে তারা নিগৃহিত এবং ধীরে ধীরে একা হয়ে যায়। নেশা কিংবা যেকোনো ধরনের অসামাজিক কাজের সাথে জড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা প্রচুর থেকে যায়। দিন দিন অপরাধ প্রবণতা বাড়তেই থাকে। বাংলাদেশে সাম্প্রতিক বেশ কিছু ঘটনার কথা আমরা জানি, যার পিছনে কন্ডাক্ট ডিজঅর্ডারের মতো সমস্যা বিদ্যমান থাকার কথা সহজেই অনুমান করা যায়।

তবে উপযুক্ত চিকিৎসা ও সহযোগিতা পেলে তারা অবশ্যই পূনরায় সঠিক পথে ফিরে আসতে পারে। সবার সমস্যা সব সময় একই রকম হবে এমন কোনো কথা নেই। সমস্যার তীব্রতাও ভিন্ন ভিন্ন হতে পারে। সমস্যা যত কম বয়সে শুরু হয় তীব্রতা সাধারণত তত বেশি হয়।

চিকিৎসার অন্তরায় ও প্রয়োজনীয় সতর্কতা

চিকিৎসা সময় সাপেক্ষ এবং অনেক ক্ষেত্রে দীর্ঘমেয়াদি। অভিভাবকরা অনেক সময় ধৈর্য্য হারিয়ে ফেলেন। তারা কন্ডাক্ট ডিজঅর্ডারে আক্রান্ত ছেলে মেয়েটির কথায় বিভ্রান্ত হয়ে অনেক সময় মাঝ পথেই চিকিৎসা থামিয়ে দেন। এমনকি চিকিৎসার প্রয়োজনীয়তা আদৌ আছে কিনা সে ব্যপারেও বিভ্রান্ত হয়ে পড়েন। আক্রান্তরা বিভিন্ন ধরনের প্রতিশ্রুতি ও বাহানা ধরে অভিভাবকদের চিকিৎসার ক্ষেত্রেও প্রতারণা করে। তারা এমনকি আত্মহত্যার মতো হুমকি দিয়ে থাকে। সুতুরাং চিকিৎসার শুরু থেকেই বিষয়গুলি ভালো করে বুঝে নেয়া প্রয়োজন।

চিকিৎসা

বেশ কিছুদিন যাবত কোনো একটি অসংগতি বা অগ্রহণযোগ্য আচরণ কোনো শিশু কিশোরের মাঝে লক্ষ্য করলে অবশ্যই সেটিকে ভালোভাবে আমলে নিতে হবে। পিছনের কারণটি বুঝার চেষ্টা করতে হবে। শারীরিক বা জেনেটিক কোনো কারণ আছে কিনা সেসব ভালোভাবে পরীক্ষা নিরীক্ষা করে দেখে নিতে হবে। যদি জেনেটিক, এডিএইচডি, বুদ্ধির সমস্যা বা শারীরিক অন্য কোনো সমস্যা, কিংবা অন্য কোনো মানসিক রোগ থেকে থাকে তবে সেসবের দ্রুত চিকিৎসার আওতায় আনতে হবে। যদি এসব সমস্যা না থাকে তবে পরবর্তী চিকিৎসার জন্য একটি পরিকল্পনা তৈরি করে ফেলতে হবে।

পিছনের কারণগুলো দ্রুত সনাক্ত করার চেষ্টা করতে হবে। আক্রন্ত মানুষটি, অভিভাবক ও চিকিৎসক তিন পক্ষকেই সমস্যার কারণের বিষয়ে একটা নির্দিষ্ট দিক নির্দেশনা তৈরি করতে হবে।

চিকিৎসার টার্গেট শুধু রোগী নয় বরং অভিাভাবক এবং রোগী দুদিকেই হতে হবে। উন্নত বিশ্বে বর্তমানে এই চিকিৎসার জন্য মা-বাবা বা অভিভাবকদেরকে, অভিভাবকত্ব বিষয়ে ট্রেনিং করানো হয়। যারা এমন সমস্যাগ্রস্ত তাদেরকেও এনগার ম্যানেজমেন্ট বা রাগ নিয়ন্ত্রণ, সোশ্যাল স্কিল ট্রেনিং বা সামাজিক দক্ষতা বৃদ্ধির ট্রেনিং এর মতো ট্রেনিং করানো হয়।

মূল চিকিসায় কিছু ওষুধের প্রয়োজন হয়। বিশেষ করে এন্টি ডিপ্রেসেন্ট এবং মুড স্ট্যাবিলাইজার বেশ উপকারী। তবে সাইকোথেরাপী অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। সাইকোথেরাপীর পাশাপাশি পারিবারিক, সামাজিক ও ধর্মীও বিভিন্ন নিয়ম কানুনের গুরুত্বও কম নয়। দেখা গেছে অভিভাবকরা যদি আক্রান্ত ছেলে কিংবা মেয়েটিকে নির্দিষ্ট কিছু নিয়ম কানুন মেনে চলতে উৎসাহিত করে তবে সেটা কাজেই লাগে। সেসবের আগে অবশ্যই চিকিৎসকের সাথে যোগাযোগ করা উচিত।

সতর্কতা এবং কন্ডাক্ট ডিজঅর্ডারের প্রতিরোধ

ছোটকাল থেকেই বয়সের সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ আচরণ করছে কিনা সেটা খেয়াল করা উচিত। অভিভাবকরা অনেক সময় সেটা লক্ষ্য করেননা। সময় কিংবা বয়সের চেয়ে বেশি কিছু আশা বা প্রত্যাশা করে ফেলেন। ছেলে কিংবা মেয়েটির বয়সের সাথে সম্পর্ক করে (এইজ এপ্রোপ্রিয়েট বিহেভিয়ার) কোন বিষয়ে কতটুকু আচরণ বা চিন্তা ভাবনা গ্রহণযোগ্য হবে সেটা খেয়াল রাখতে হবে। বয়সের সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ হলে, কোনো একটা আচরণ খারাপ লাগলেও সেটা ইতি বাচক হিসেবে গ্রহণ করতে হবে। আবার সম্পর্কযুক্ত না হলে, ভালো লাগলেও সেটা রোটিন করে পরিবর্তনের চেষ্টা করা উচিত।

শিশু কিংবা কিশোরদের মাঝে যাতে কন্ডাক্টের সমস্যা দেখা না দেয় তার জন্য শাস্তি এবং পুরস্কার প্রদান পদ্ধতিটি জেনে রাখা উচিত। এসব বিষয়ে নিজের ইচ্ছা বা মানসিক অবস্থার উপর ভিত্তি না করে, শিশুটির বয়স ও মানসিক দিক নজর দেয়া উচিত।

monon-600

পিতা মাতা বা অভিভাবকদের যেসব বিষয় জেনে রাখা প্রয়োজন

সমস্যা, ইতিহাস ও প্রয়োজনীয় পরীক্ষা নিরীক্ষার পর কন্ডাক্ট ডিজঅর্ডার হিসেবে রোগ নির্নয় নিশ্চিত হলে, চিকিৎসার জন্য সময় দিতে হবে। মনে রাখতে হবে, এই চিকিৎসায় অনেক সময় বেশ সময় লাগতে পারে। চিকিৎসার শুরুতেই ছেলে কিংবা মেয়েটির শারীরিক, মানসিক ও অন্য আরো কোনো সমস্যা আছে কিনা সেটি ভালো করে বুঝে নিতে হবে। অভিভাবকদের নিজেদের কোনো সমস্যা থাকলে সেবিষয়গুলিও গুরুত্ব সহকারে দেখতে হবে এবং দ্রুত সমাধানের চেষ্টা করতে হবে। তা না হলে পুরো চিকিৎসা পদ্ধতিটিই নষ্ট হয়ে যেতে পারে।

মনে রাখা দরকার, চিকিৎসা সাইকোথেরাপী ও উপদেশ এক কথা নয়। কন্ডাক্ট ডিজঅর্ডার আক্রান্ত ছেলে বা মেয়েটির পড়াশুনাসহ প্রায় সব ক্ষেত্রেই সমস্যা হয়ে থাকে, কিন্তু সব সমস্যা একবারে সমাধান সম্ভব নয়। একবারে সবকিছু ঠিক করতে গেলে বরং উল্টো প্রতিক্রিয়া হতে পারে। (আরো খারাপ কিছুও হয়ে যেতে পারে)। একটা একটা করে সমস্যা বুঝে সমাধানের দিকে আগাতে হবে।

যে আচরণ বা সমস্যা ঠিক করার কথা ভাবা হবে, সে বিষয়ে পরিবার, শিক্ষক এবং সকলের একমত হতে হবে। নির্দিষ্ট আচরণটি ঠিক করার ব্যাপারে, অভিভাবকের কেউ একটি সিদ্ধান্ত নিলে অন্যদেরও সেই বিষয়ে একই কথা, মতামত ও ইচ্ছা প্রকাশ করতে হবে। সুতরাং সিদ্ধান্ত নেবার আগে, ভালো করে ভেবে বুঝে সিদ্ধান্ত নিতে হবে।

অনেক সময় অভিভাবকরা মনে করেন, এটা করলে বা এভাবে করলে সব ঠিক হয়ে যাবে। তারা তাদের মতামত প্রতিষ্ঠিত ও প্রয়োগ করতে চায়। এমন কি চিকিৎসা পদ্ধতি প্রয়োগের ক্ষেত্রেও তারা তাদের ইচ্ছার প্রয়োগ করতে চায়। যা চিকিৎসা বিষয়টিকেই ব্যহত করে। তারা হয়তো মনে করেন, যেহেতু আমার সন্তান বা আমার সাথে থাকে সুতরাং আমি সমস্যাগুলি ভালো বুঝি। মনে করেন, এভাবে করতে পারলেই সব কিছু ঠিক হয়ে যাবে। তারা তাদের ইচ্ছাকে থেরাপীষ্ট বা চিকিৎসকের মাধ্যমে প্রয়োগ করতে চায়। যা কোনো ভাবেই ঠিক নয়।

এখানে স্পষ্ট মনে রাখতে হবে, আক্রান্ত ছেলে বা মেয়ে, অভিভাবক ও চিকিৎসক এই তিন পক্ষের সমঝোতা ও সমন্বয়ের মাধ্যমেই চিকিৎসা চালাতে হবে। অবশ্যই চিকিৎসক মূল পদ্ধতিটি ঠিক করবেন। অভিভাবক সময়মতো তথ্য ও ইতিহাস বলে এবং সেই সাথে কার্য বা সিদ্ধান্ত প্রয়োগ পদ্ধতিতে যথাযথ সহায়তা করবেন। প্রয়োজনে আক্রান্ত ছেলে মেয়েটির সাথে আলাপ করে, কোনো একটি বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিতে হবে। কন্ডাক্ট ডিজঅর্ডারে আক্রান্ত ছেলে বা মেয়েটিকে চিকিৎসার প্রয়োজনীয়তা বুঝাতে পারলে, সেটা হবে সবচেয়ে ভালো।

কোনো একটা আচরণ তিন পক্ষের মতামত নিয়ে ঠিক করা হবে, সেটি কোনো ভাবেই পরিবর্তন করা ঠিক হবেনা। কোনো প্রকার প্রতারণা বা ছলচাতুরিকে প্রশ্রয় দেয়া যাবেনা। একবার সে সিদ্ধান্ত পরিবর্তন করাতে পারলে পরবর্তীতে অন্য কোনো বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেয়া এবং কার্যকরী করা আরো কঠিন হয়ে যাবে। সুতরাং ভালো করে বুঝে, চিন্তা করে সিদ্ধান্ত নিতে হবে।


প্রকাশিত মতামত লেখকের একান্তই নিজস্ব। মনের খবরের সম্পাদকীয় নীতি বা মতের সঙ্গে লেখকের মতামতের অমিল থাকতেই পারে। তাই মনের খবরে প্রকাশিত কলামের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো দায় নেবে না কর্তৃপক্ষ।

• চেয়ারম্যান ও অধ্যাপক - মনোরোগবিদ্যা বিভাগ, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়। • সেকশন মেম্বার - মাস মিডিয়া এন্ড মেন্টাল হেলথ সেকশন অব 'ওয়ার্ল্ড সাইকিয়াট্রিক এসোসিয়েশন'। • কোঅর্ডিনেটর - সাইকিয়াট্রিক সেক্স ক্লিনিক (পিএসসি), মনোরোগবিদ্যা বিভাগ, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়। • সাবেক মেন্টাল স্কিল কনসাল্টেন্ট - বাংলাদেশ ন্যাশনাল ক্রিকেট টিম। • সম্পাদক - মনের খবর। চেম্বার তথ্য - ক্লিক করুন