মূল পাতা / জীবনাচরণ / মন প্রতিদিন / খেতে হবে পূর্ণ মনোযোগের সাথে!

খেতে হবে পূর্ণ মনোযোগের সাথে!

অনেকে তাড়াহুড়ো করে খান। অথবা খেতে হয় বলে খান। হয়ত ইচ্ছা করে মনোযোগ দিয়ে খেতে। কিন্তু অনেকদিনের অভ্যাস। সেভাবে খাওয়ার সময় মনোযোগ আসে না। তবে খাওয়ার সময় পাঁচ ইন্দ্রিয় ব্যবহার করুন। চলুন কিছু মজার গবেষণার কথা জানা যাক।

চিবানোর প্রভাব
একটা গবেষণায় কিছু অংশগ্রহণকারীদের বিস্কিট খেতে দেয়া হয়। তবে শর্ত ছিল- কাওকে নিঃশব্দে, কাওকে জোড়ে জোড়ে শব্দ করে আর কাওকে স্বাভাবিকভাবে খেতে হবে। দেখা যায়, যারা শব্দ করে খেয়েছিলেন; তারা সবচেয়ে কম খেয়েছেন। প্রকৃতপক্ষে যারা মানুষ কি বলবে – এসবের তোয়াক্কা না করে শব্দ করে খেয়েছেন। তারাই পূর্ণ মজা নিয়ে খেয়েছেন। তাই অল্পতেই তৃপ্ত হয়েছেন। খাবার সময় ভালভাবে চিবিয়ে মজা সহকারে খান।

চোখ বন্ধের প্রভাব
একটা ইন্দ্রিয় থেকে মনোযোগ সরিয়ে নিলে অন্য ইন্দ্রিয়গুলো বেশি কাজ করে। কারণ ঐ কাজে অন্য ইন্দ্রিয়ের ওপর নির্ভর করতে হয়। গবেষণায় অংশগ্রহণকারীদের কাওকে চোখ বেঁধে আর কাওকে স্বাভাবিকভাবে খেতে বলা হয়। যারা চোখ বন্ধ করে খেয়েছিল, তাদের বক্তব্য অনুযায়ী; তারাই অল্প খাবার খুব বেশি উপভোগ করে খেয়েছিল। তাই খাওয়ার সময় মাঝে মাঝে চোখ বন্ধ করে স্বাদ উপভোগ করুন।

ঘ্রানের প্রভাব
অনুসন্ধানে দেখা গেছে, প্রাথমিকভাবে ঘ্রাণ নিলে অনেকেই ডাব কিনতে আগ্রহ দেখিয়েছেন। কিন্তু পুনরায় ঘ্রাণ নেয়ার পর সেই আগ্রহে ভাটা পরে। একই ঘ্রাণে অভ্যস্ত হয়ে গেলে এমন হয়। এমনকি পরীক্ষার ফলাফল অনুযায়ী, ১২০ বার ঘ্রাণ নেয়ার পর অংশগ্রহণকারী আর ঘ্রাণ নিতেই চাচ্ছিলেন না। অতএব খাওয়ার শুরুতে মন ভরে ঘ্রাণ নিন খাবারের।

খাবার স্পর্শ
স্পর্শ সম্পর্কিত সাম্প্রতিক এক অনুসন্ধানে মজার ফলাফল পাওয়া যায়। একটি পরীক্ষায় অংশগ্রহণকারীদের কাওকে প্যাকেট সহ আর কাওকে প্যাকেট ছাড়া চকলেট খেতে দেয়া হয়। প্যাকেট ছাড়া চকলেট পেয়ে যারা সরাসরি চকলেট স্পর্শ করেছিলেন প্রথমেই- তারাই খান সবচেয়ে কম। একবারে চকলেটের প্যাকেট খুলে হাতে নেয়া আর একটু একটু করে প্যাকেট খুলে খাওয়াই পার্থক্যের কারণ। তৃপ্তি হলে বেশি খাওয়ার প্রয়োজন পড়ে না। খাবার স্পর্শ করুন। খান আনন্দে।

স্বাদ নেয়া
যদি প্রশ্ন করা হয়, ঝাল নাকি মিষ্টি- কোনটা খাবারের স্বাদ বাড়ায়? আসল উত্তর, মনোযোগ। খাবার খাওয়ার আরেক পরীক্ষায় দেখা গেছে, খাবারের সময় অমনোযোগীদের চেয়ে যারা মনোযোগী – তারা খাবার অল্প খান, কিন্তু উপভোগ করেন বেশি। আসলে আমাদের স্মৃতি স্বাভাবিকভাবে খুবই স্বল্পস্থায়ী। মনোযোগ না থাকলে যে কোনো কিছু আমরা সাধারণত দ্রুত ভুলে যাই। প্রথম খাবার মুখে তোলার সময় যে স্বাদ আমরা পাই, একটু পরেই অভ্যস্ত হয়ে যাই। তাই খাবার শুরু করুন ভালভাবে স্বাদ নিয়ে।

ভারতীয় প্রাচীন গ্রন্থ আয়ুর্বেদেও সুস্থ স্বাস্থ্যের উপদেশাবলিতে খাবার সময় পঞ্চ ইন্দ্রিয় ব্যবহারের পরামর্শ দেয়া হত। পঞ্চ ইন্দ্রিয় ব্যবহার করুন। তৃপ্তি নিয়ে খান।

সাইকোলজি টুডে অবলম্বনে লিখেছেন,
মাসাফি আহমেদ ফেরদৌস অনিক