মূল পাতা / জীবনাচরণ / এড়াতে হবে ভালো না লাগা

এড়াতে হবে ভালো না লাগা

আজকাল অনেককেই যে কথাটা সবচেয়ে বেশি বলতে শোনা তাহল-কিছুই ভালো লাগে না। পড়াশোনা, অফিসের ব্যস্ততা কিংবা পারিবারিক জীবন—সবকিছুতেই যেন একধরনের বিরক্তি, খিটখিটে মেজাজ। কিশোর থেকে শুরু করে মাঝবয়সী মানুষের মধ্যেও এ সমস্যা দেখা দেয়। এমনকি সাত কিংবা আট বছরের একটি বাচ্চারও হতে পারে এ সমস্যা।

ভালো না লাগাটা কেন?

আপনি হয়তো বন্ধুদের সঙ্গে আছেন। বন্ধুদের মধ্য থেকে একজন আপনাকে নিয়ে মজার কিছু বলছেন, সেখানেও মেজাজ বিগড়ে গেল আপনার। অন্যরা যেখানে ঠাট্টা করছেন, আপনি সেখানে সহজেই রেগে উঠছেন। কেন এমন? বিশেষজ্ঞরা বলছেন, ‘অতিরিক্ত কাজের চাপ, একঘেয়েমি বোধ, একাকিত্ব কিংবা প্রতিকূল পরিবেশ মানুষকে এমন সমস্যার দিকে ঠেলে দেয়। আর এ সমস্যা বেশি দেখা দেয় কৈশোর ও মধ্যবয়সে।’

 কিশোর-কিশোরীর ক্ষেত্রে অতিরিক্ত সংবেদনশীলতা থেকে এ সমস্যা দেখা দেয়। হয়তো পরিবারের নানা বিধিনিষেধে তারা হাঁপিয়ে ওঠে। আর বাকিদের ক্ষেত্রে সমস্যাটা দেখা দেয় অতিরিক্ত কর্মব্যস্ততা কিংবা সব সময় সফল হতেই হবে—এমন মনোভাব পোষণ করলে।

যাঁরা খুব ছোট পরিবারে বড় হয়ে ওঠেন, তাঁদের মধ্যেও অল্পতেই বিরক্ত হয়ে যাওয়ার প্রবণতা দেখা যায় বলে মনে করেন মরিয়ম সুলতানা। যেহেতু মানুষটি তাঁর সমবয়সী কারও সঙ্গে খোলাখুলি মেলামেশা করতে বা কথা বলতে পারছেন না, তাই তাঁর মধ্যে একাকিত্ব দেখা দেবে। ফলে একটা সময় সবকিছুর প্রতি তাঁর একটা অনীহা কাজ করবে। অল্পতেই তিনি হয়ে উঠবেন বিরক্ত।

 শিশুদের ক্ষেত্রেও অনেকটা তাই। স্কুল বা কোচিংয়ের বিভিন্ন চাপ, পরিবারের বিভিন্ন আদেশ তাদের মধ্যে অনীহা তৈরি করে। আর যেহেতু শহরে এরা বেড়ে ওঠে একাকিত্বের সঙ্গে, তাই অনেক শিশুও অল্পতেই খিটখিটে মেজাজ করে থাকে।

যা করা যায়

* যে কাজটি করতে ভালো লাগছে না, আপাতত সেটা করবেন না। মন ভালো থাকলে কাজটি এমনিতেই ভালো হবে।

* পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে রাগ না করে তাঁদের বুঝিয়ে বলুন।

* বন্ধুমহলেও রাগ না করে তাঁদের সঙ্গে খোলামেলা আলোচনা করতে পারেন, হয়তো আপনার এমন আচরণে বন্ধুরাও অনেকটা দূরে সরে গেছেন। সেই দূরত্বটা নিজে থেকেই কমিয়ে আনার চেষ্টা করুন।

* সঠিক সময়ে খাবার এবং ঘুমের অভ্যাস করুন। খাবার তালিকায় সবজি এবং যথেষ্ট পরিমাণে পানি রাখুন। আর ঘুমটা হতে হবে কমপক্ষে ৬ ঘণ্টার।

* ইয়োগা কিংবা নিয়মিত শরীরচর্চার ফলেও বিষণ্নতা কেটে যাবে। এ ছাড়া শরীরে রক্তপ্রবাহ এবং মাংসপেশি ঠিক থাকবে। বেশি কিছু না হলে প্রতিদিন সন্ধ্যায় অন্তত এক ঘণ্টা হাঁটার অভ্যাস করুন।

* অবসরে কোথাও বেড়িয়ে আসুন। চাইলে প্রতি সপ্তাহেই কোথাও ঘুরে আসতে পারেন। এতে মনের একঘেয়েমি কেটে উঠবে সহজেই।

* সমস্যাগুলোকে তালিকাভুক্ত করুন। নিজেকে জিজ্ঞেস করুন, আপনি কী করতে চান বা কোন ব্যাপারগুলো আপনাকে বাধা দিচ্ছে। নিজের কাজে দৃঢ়তা বজায় রাখুন।

* চাইলে কাউন্সেলরের সঙ্গেও কথা বলতে পারেন। এতে ব্যাপারটা অনেক সহজ হয়ে উঠবে।

* তাহলে এবার মনটা প্রফুল্ল করেই ফেলুন!

এই সমস্যার নানা উপসর্গ

* মেজাজ অল্পতেই খিটখিটে হয়ে থাকা, সঙ্গে সামান্য বিষয়েই রেগে ওঠা;

* পরিচিত কাউকেই যখন আর ভালো লাগে না, এমনকি কেউ যদি আপনার মঙ্গলের জন্যও কিছু বলে থাকেন;

* কাজে ঠিকমতো মনোযোগ না থাকা;

* ক্ষুধাহীনতা কিংবা অনেকের ক্ষেত্রে নিদ্রাহীনতা;

* সবকিছুতেই একধরনের অনীহা কাজ করা;

* অতিরিক্ত মানসিক চাপ বা চিন্তা করা।

সমস্যা থেকে বেরিয়ে আসার উপায়

এর থেকে পরিত্রাণের উপায়টি কিন্তু তেমন কঠিন কিছু নয়, বিশেষজ্ঞদের মতে, সব সময় হাসিখুশি থাকতে হবে, একাকিত্ব এড়িয়ে চলতে হবে। সব সময় চেষ্টা করতে কারও সঙ্গে মিশতে। হয়তো প্রথমে তাঁকে ভালো লাগবে না, কিন্তু একটা সময় পর দেখা যাবে যে নতুন বন্ধুটিকে আপনার ভালো লাগতে শুরু করেছে। সবচেয়ে উপকার হবে আপনার মনের।’