মূল পাতা / জীবনাচরণ / আত্মবিশ্বাস বাড়াতে করণীয়

আত্মবিশ্বাস বাড়াতে করণীয়

আত্মবিশ্বাস কোনো জন্মগত সম্পদ নয়। তবে ধীরে ধীরে এটিকে নিজের সম্পদে পরিণত করা যায়। আত্মবিশ্বাস এমনই এক সম্পদ যা একবার রপ্ত করতে পারলে সারাজীবন প্রায় প্রতিটি কাজেই সফলতা অর্জন করা সম্ভব। তবে আত্মবিশ্বাসী একদিনে যেমন হওয়া যায় না ঠিক তেমনি এটিকে নিজের বশে আনতে করতে হয় কঠিন তপস্যা। নিজেকে আত্মবিশ্বাসী করে গড়ে তুলতে চাইলে জেনে নিতে পারেন নিচের বিষয়গুলো।

নিজেকে সফল ভাবতে শিখুন: একধরনের লোক আছেন, যারা নিজেদের তুচ্ছ মনে করেন। জীবনে যত কিছুই অর্জন করুক না কেন, তাঁরা তাঁদের অর্জনগুলোকে ছোট করে দেখেন। এতে তাঁদের মধ্যে আত্মবিশ্বাসের ঘাটতি দেখা দেয়। আপনার অর্জন যত ক্ষুদ্রই হোক না কেন একে অবহেলা করবেন না। দেখা যাবে এ ক্ষুদ্র অর্জনগুলোই আপনার আত্মবিশ্বাস বাড়িয়ে দেবে।

ইতিবাচকভাবে চিন্তা করুন: কোনো কিছু পাওয়ার জন্য আমরা চেষ্টা করি। না পেলে ভেঙে পড়ি। নিজেকে তুচ্ছ মনে করি। এটা কিন্তু ভুল। বিজ্ঞানী আইনস্টাইন ইলেকট্রিক বাতি আবিষ্কার করার পর বলেন, আমি সাতশবার চেষ্টা করে এ বাতি আবিষ্কার করেছি। এত বার বিফল হলেও আমি দমে যাইনি। নিজেকে বুঝিয়েছি আমি অন্তত সাতশ পদ্ধতি শিখলাম যেটা দিয়ে ইলেকট্রিক বাতি তৈরি করা সম্ভব নয়। কোনো কাজে একবার চেষ্টা করে ব্যর্থ হলে আশা ছেড়ে দেবেন না।

মনের ভয় জয় করুন: কোনো কাজ শুরু করতে গেলে শুরুতেই মন থেকে বাধা আসতে পারে। মনে হতে পারে এটা আপনি পারবেন না। তবে এই চিন্তাকে পাত্তা দেবেন না। মনের ভয় দূর করে কাজে লেগে পড়ুন। নিজেকে বোঝান অন্যরা যা পারে আপনিও তা পারবেন।

এখনই শুরু করুন: পরীক্ষার আগে পড়া কম হয়েছে মনে করে অনেক শিক্ষার্থী দুশ্চিন্তা করে অযথা সময় নষ্ট করে। এতে তো কোনো  লাভ হয় না, উল্টো সময় নষ্ট করে পরীক্ষার প্রস্তুতি আরো খারাপ হয়। সাত-পাঁচ ভেবে সময় নষ্ট না করে যা করার এখনই শুরু করুন।

আপনিই পারবেন, পারতেই হবে এটা ভাবুন: নিজের একটি উদাহরণ দেওয়া যেতে পারে, গ্রামের একটি স্কুল থেকে এসএসসি শেষ করে নটর ডেম কলেজে ভর্তি হই। গ্রামের স্কুল বলে শহুরে ছাত্ররা আমাদের বেশ অবজ্ঞা করত। একদিন এক শহুরে ছাত্রের আচরণে ভীষণ কষ্ট পাই। প্রতিজ্ঞা করি তার চেয়ে ভালো করতেই হবে। মনে হতো, এটা সম্ভব না। প্রথম দুটি পরীক্ষায় না পারলেও হাল ছাড়িনি। শেষ পরীক্ষায় তার চেয়ে চল্লিশ নম্বর বেশি পাই। আপনিও ভাবুন, আপনি পারবেন। তবে শুধু ভাবলেই হবে না তা অর্জনে পরিশ্রম করতে হবে।

নিজেকে পুরস্কৃত করুন: কোনো কিছুতে সফল হলে নিজেকে পুরস্কৃত করুন। অর্জন হোক না কেন ক্ষুদ্র কিছু। নিজে নিজেকে প্রশংসা করুন।

পরিপাটি, হাসিখুশি থাকুন: নিজেকে পরিপাটি রাখলে মন প্রফুল্ল থাকে। বেড়ে যায় আত্মবিশ্বাস। পরিষ্কার জামা-কাপড় পরুন। চুল রাখুন পরিপাটি। অন্যের সামনে হাসিখুশি থাকুন। বিষাদগ্রস্ত হলে নিজের ক্ষমতা সম্বন্ধে নেতিবাচক ধারণা জন্মায়। কমে যায় আত্মবিশ্বাস।

পরাজয়ে বীর ভয় পায় না: ইংরেজিতে একটি প্রবাদ আমরা সবাই জানি ‘ফেইলিওর ইজ দ্য পিলার অব সাকসেস’। এটা মেনে চলুন। কোনো কাজে সফলতা না পেলে নিজেকে তুচ্ছ ভাববেন না। অনেকে পরাজিত হওয়ার ভয়ে নতুন কোনো কিছু শুরু করতে আগ্রহী হন না। এটা না করে ভাবুন যদি কাজ শুরু না করেন তাহলে তো আপনার সফল হওয়ার সম্ভাবনা নেই। কিন্তু কাজ শুরু করলে এ সম্ভাবনা অর্ধেক।