মূল পাতা / মন ও ক্রীড়া / মানসিক অবসাদ কাটাতে শরীর চর্চা কতটা জরুরি?

মানসিক অবসাদ কাটাতে শরীর চর্চা কতটা জরুরি?

শারীরিক এবং মানসিক স্বাস্থ্য নিয়ে দৈনিক কতটা সময় চিন্তা করি? আদৌ সময় করে কি এমন কোনো কাজ করি- যাতে আমাদের দৈহিক এবং মানসিক গঠনের সুস্থতা বজায় থাকে?

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের এক গবেষণায় বলা হচ্ছে,  প্রত্যেক সপ্তাহে অন্তত ৪৫ মিনিট করে তিন থেকে চারবার শারীরিক চর্চা করলে মানসিক অনেক দুশ্চিন্তা দূর হবে। তবে কেউ যদি এর চেয়ে বেশি সময় ধরে শরীর চর্চা করে তা অনেক সময় ক্ষতির কারণও হতে পারে।

শারীরিক এই চর্চার মধ্যে প্রথমেই চলে আসে- কোন টিমের সাথে খেলাধূলা (ফুটবল, ক্রিকেট, ভলিবল), সাইক্লিং এবং শরীর চর্চার জনপ্রিয় ব্যায়াম এরোবিকের নাম।

গবেষণায় প্রায় ১২ লক্ষ মানুষ এক মাসব্যাপী তাদের প্রতিদিনের শারীরিক চর্চার হিসেবের তথ্য তুলে ধরেন। এতে দেখা যায় নিয়মিত ব্যায়াম করেন তারা অন্যদের চেয়ে দেড় গুণ বেশি সুখী।

যুক্তরাষ্ট্রের দ্য ল্যান্সেট সাইকিয়াট্রি জার্নাল-এ প্রকাশিত এই গবেষণায় আরও বলা হচ্ছে, এই সকল ধরনের শারীরিক চর্চার ফলে যে মানসিক প্রশান্তি হয়, এটা বয়স, লিঙ্গ কোনো ব্যাপার না। এমনকি মানসিক প্রশান্তি হতে পারে ঘরের কাজ এবং বাচ্চা দেখাশুনার মধ্য দিয়ে।

তবে বলা হচ্ছে এই ধরনের বিষয় এটাই সবচেয়ে বড় গবেষণা। কিন্তু এখনো তারা নিশ্চিত নন যে, আসলেই শারীরিক পরিশ্রম মানসিক স্বাস্থ্য ভালোর কারণ কি না!

মানসিক স্বাস্থ্যের ফলে ব্যায়ামের প্রভাব সম্পর্কে পূর্ববর্তী গবেষণায় মিশ্র ফল পাওয়া গেছে। অন্য গবেষণায় বলা হয়েছে দৈনিক কার্যকলাপের অভাব এবং শরীর চর্চার অভাবে মানুষের মাঝে হতাশার মত উপসর্গ গুলো বাড়তে থাকে। দৈনিক ব্যায়াম হৃদরোগ, স্ট্রোক এবং ডায়াবেটিসের ঝুঁকি কমাতে সাহায্য করে থাকে।

এখানে বলা হচ্ছে প্রাপ্তবয়স্ক একজন নারী এবং পুরুষ যদি শারীরিক পরিশ্রম না করে তাহলে তারা প্রতিমাসে ৩ থেকে ৪ দিন অবসাদে থাকে। কিন্তু এই মাত্রাটা অনেক কম দেখা যায় যারা দৈনিক শারীরিক ব্যায়াম করে তাদের তুলনায়।

অনেকের প্রশ্ন থাকে কতক্ষণ বা কত সময় ধরে ব্যায়াম বা শরীর চর্চা একটা মানুষের জন্য আর্দশ? সর্বোত্তম রুটিন হিসাবে একদিন পর পর ৩০ থেকে ৬০ মিনিট শরীর চর্চা একটা মানুষের জন্য আর্দশ ধরা যেতে পারে।

যুক্তরাষ্ট্রের ইয়ালে বিশ্ববিদ্যালয়ের সহ-অধ্যাপক এডাম চেকরাউড বলেন, আগে মানুষ বিশ্বাস করতো যত বেশি ব্যায়াম করবেন, আপনার মানসিক স্বাস্থ্য আরও ভাল হবে।

কিন্তু আমাদের গবেষণায় দেখা গেছে যে, অতিরিক্ত ব্যায়াম অনেক সময় হিতে বিপরীত হতে পারে। এক মাসে ২৩ বারের বেশি ব্যায়াম করা, অথবা ৯০ মিনিটেরও বেশি সময় ধরে ব্যায়াম করা মানসিক স্বাস্থ্যের ক্ষতির কারণ হতে পারে।

তিনি একাকিত্ব, হতাশা, এবং প্রাণোচ্ছলতা জন্য দলীয় এবং গ্রুপ শরীর চর্চার গুরুত্বের কথা বলেছেন। এই ধরনের শরীর চর্চা দৈনিক করলে মানসিক অবসাদ কাটিয়ে উন্নত মানসিক এবং শারীরিক গঠনের জন্য সাহায্য করবে।