ফেসবুক ব্যবহার মানসিক স্বাস্থ্যের জন্য উপকারী!

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকের ব্যবহার দিন দিন বেড়েই চলেছে। বর্তমান প্রজন্মের তরুণ তরুণীদের কাছে ফেসবুক এখন একটি রুটিন ওয়ার্ক হয়ে দাঁড়িয়েছে। মানুষের কল্যাণে মাধ্যমটি ব্যবহার করা হলেও সম্প্রতি বিভিন্ন গবেষণায় দেখা গেছে, কখনও কখনও এটি ক্ষতির কারণ হয়ে দাঁড়ায়।

সম্প্রতি যুক্তরাষ্ট্রের Buckinghamshire New University ২০ জন মানুষের উপর এক গবেষনা করে যাদের বয়স ২৩ থেকে ৬৮ বছর। এতে দেখা গেছে হতাশা, উদ্বিগ্নতা, বায়োপোলার ডিজর্ডার, সিজোফ্রেনিয়া রোগে আক্রান্ত ব্যক্তিরা তাদের মানসিক অবস্থার উন্নতির জন্য ফেসবুক ব্যবহার করে।

গবেষক দলের প্রধান কেলিন হাওয়ার্ড বলেছেন, মানসিক রোগ প্রতিরোধে ফেসবুকের যেমন অবদান রয়েছে, তেমনি ফেসবুক ব্যবহারে মানসিক রোগের মাত্রা আরো বেড়ে যেতে পারে। এটা নির্ভর করে আপনি কিভাবে ফেসবুক ব্যবহার করছেন।

জরিপে দেখা গেছে, ব্যবহারকারীর প্রোফাইল ব্যক্তির মানসিক রোগ সংকট থেকে মুক্ত হতে সাহায্য করে। আবার অনেকেই বলেছেন, এটি তাদের মানসিক অবস্থাকে আরো বিষণ্ণ করে তোলে।

অনেকেই বলেছেন, ফেসবুকে অন্যের সাথে যোগাযোগ করে, নিজের কথাগুলো অন্যকে জানাতে পেরে, ছবি কিংবা স্ট্যাটাসে কারো লাইক, কমেন্টস পেয়ে তাদের মানসিক অবস্থার উন্নতি ঘটেছে।

তবে, মানসিক রোগের কারণে যাদের মনো বৈকল্য ঘটেছে তারা ফেসবুককে সমস্যা হিসেবে দেখেছে।

যেসব রোগীদের সিজোফ্রেনিয়া ধরা পড়েছে তাদের অনেকে মনে করে, অসুস্থ অবস্থায় ফেসবুক ব্যবহার করা ক্ষতিকর। তবে ফেসবুক ব্যবহারের মাধ্যমে অবসর সময় কাটিয়ে, মানসিক রোগ সম্পর্কে অভিজ্ঞতা নিয়ে রোগী সুবিধা পেতে পারে।

ফেসবুক ব্যবহারের সময় বিভিন্ন কৌশল ব্যবহার করতে হয় বলে এটা রোগীর বুদ্ধিবৃত্তিকে জাগ্রত করে বলে মনে করে কেলিন হাওয়ার্ড।

তথ্যসুত্রঃ ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস

ফারুক হোসেন
আন্তর্জাতিক ডেস্ক, মনেরখবর.কম