শিশুর সুষ্ঠু মানসিক বিকাশে মাকে চাপমুক্ত রাখুন 1

শিশুর সুষ্ঠু মানসিক বিকাশে মাকে চাপমুক্ত রাখুন

একটি পরিবারে শিশুরাই মনোযোগের কেন্দ্র বিন্দুতে থাকে। শিশুর শারীরিক ও মানসিক বিকাশের দিকেই সবার নজর থাকে। এতে করে প্রায়সই মায়েদের বিষয়গুলো নজরে আসে না। কিন্তু সাম্প্রতিক একটি গবেষণায় দেখা যাচ্ছে, মায়েদের মানসিক চাপ ও বিষণ্ণতার লক্ষণগুলো কমালে তারা শিশুদের প্রারম্ভিক জীবনে প্রয়োজনীয় উদ্দীপনা দিতে পারে এবং ঘরে শিশুর বিকাশে অনুকূল পরিবেশ তৈরি করতে পারে।

আই সি ডি ডি আর, বি এর গবেষক ডা. ফাহমিদা তোফায়েল এবং তার সহকর্মীরা গবেষণার ফলাফলে দেখেছেন, মায়েরা কম চাপে থাকলে শিশুদের জীবনের শুরুটা সুন্দর হয় এবং বুদ্ধিমান হয়। তারা আরও দেখিয়েছেন, তৃণমূল পর্যায়ের চলমান সরকারি স্বাস্থ্যসেবার মাধ্যমেই মায়েদের জীবনের চাপ ও বিষণ্ণতা কমানো সম্ভব।

২৯ নভেম্বর, রোববার আইসিডিডিআর, বির সাসাকাওয়া মিলনায়তনে একটি সেমিনারের মাধ্যমে এই গবেষণা প্রতিবেদনটি সবার সামনে উপস্থাপন করা হয়। প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন অধ্যাপক হাবিবে মিল্লাত এমপি।

ডা. তোফায়েল ও তার সহকর্মীরা সহজ উপায়ে, কম খরচে, এলাকাভিত্তিক কর্মসূচির মাধ্যমে বিষণ্ণ মায়েদের আচরণ পরিবর্তনে সক্ষম হয়েছেন।

কম বয়সী শিশুদের মায়েদের জন্য তারা কর্মসূচি নিয়েছেন কারণ জীবনের প্রথম ১০০০ দিনের মধ্যে মানুষের মস্তিস্কের সর্বাধিক বিকাশ ঘটে। এই কর্মসূচিতে মায়েদের “সুস্থ-চিন্তা করা” ও শিশুকে “উদ্দীপনা” দেয়ার কার্যক্রম যুক্ত করা হয়েছে।

তথ্য অনুযায়ী, বিশ্বব্যাপী প্রায় ২০ কোটি শিশু তাদের পরিপূর্ণ বিকাশের স্তরে পৌঁছাতে পারে না। উন্নত এবং উন্নয়নশীল উভয় দেশেই মায়েদের মাঝে বিষণ্ণতা ও অন্যান্য মানসিক সমস্যার হার অনেক বেশী। বাংলাদেশে প্রায় শতকরা ২৫ ভাগ প্রসূতি মায়েরা বিষণ্ণতায় ভোগে।

তবে এটা খুবই আশাব্যাঞ্জক যে, ডা. তোফায়েলের সাধারণ কর্মসূচি বিষণ্ণতার হার প্রায় অর্ধেকে কমিয়ে এনেছে। এতে শিশুদের উল্লেখযোগ্য বুদ্ধির বিকাশও ঘটেছে।

ডা. তোফায়েল জানান, ‘গবেষণার ফলাফলের মাধ্যমে এটাই প্রমানিত হয় যে শিশুর প্রারম্ভিক বিকাশের কর্মসূচিগুলোতে মায়েদের মন মানসিকতার দিকে লক্ষ্য রাখাও অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।

ডা. তোফায়েল মনে করেন এ ধরনের কর্মসূচির মাধ্যমে শিশুদের স্কুলে ভাল ফলাফল নিশ্চিত করা সম্ভব। সমাজে তাদের গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালনেও সাহায্য করতে পারি, যা পরবর্তীতে দেশের সামাজিক এবং আর্থিক উন্নয়নে অবদান রাখবে। জি.সি.সি (Grand Challenge Canada)-এর আর্থিক সহায়তায় এই গবেষণা কার্যক্রম সম্পন্ন হয়।

জাহিদ হাসান, প্রতিবেদক
মনেরখবর.কম


লক্ষ্য করুন- মানসিক স্বাস্থ্য বিষয়ক খবর বা প্রেস রিলিজও আমাদের পাঠাতে পারেন। বৈজ্ঞানিক সেমিনার, বিশেষ ওয়ার্কশপ, সাংগঠনিক কার্যক্রমসহ মানসিক স্বাস্থ্য বিষয়ক যে কোনো খবর পাঠাতে news@monerkhabor.com এই ইমেইলটি ব্যবহার করতে পারেন আপনারা।