মাসিক মনের খবর- এর ফেব্রুয়ারি সংখ্যা এখন বাজারে

বাজারে এসেছে মাসিক মনের খবর- এর ফেব্রুয়ারি সংখ্যা। যা যা আছে এই সংখ্যায়- শিশুশিক্ষা ও ফাল্গুন নিয়ে বিশেষ আয়োজনসহ নিয়মিত বিভাগগুলো নিয়ে রয়েছে বর্ণাঢ্য আয়োজন। এবারের প্রচ্ছদ প্রতিবেদন শিশু শিক্ষা নিয়ে। শিক্ষার চাপ শিশুদের মনে কী ধরনের প্রভাব ফেলতে পারে, তা উঠে এসেছে অধ্যাপক ডা. সালাহ্‌উদ্দিন কাউসার বিপ্লবের ‘অপরিণত মনে বাড়তি চাপ’ শীর্ষক প্রচ্ছদ প্রতিবেদনে। এ বিষয়ে ‘আগে মানসিক বিকাশ না প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা’ শীর্ষক আলোচনা করেছেন মো. সাইফুজ্জামান রানা। পরীক্ষার নামে যে শিশুদের আনন্দ কেড়ে নেওয়া হচ্ছে, বিশেষ সাক্ষাৎকারে এমনটাই জানিয়েছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষা ও গবেষণা ইনস্টিটিউটের সাবেক পরিচালক অধ্যাপক ড. সিদ্দিকুর রহমান। ‘শিক্ষায় সংস্কৃতি পাঠ জরুরি’ শীর্ষক রচনা লিখেছেন কবি আবুল মোমেন। এছাড়া শিশু শিক্ষার আলো ছড়ানো ব্যতিক্রমী কিছু প্রতিষ্ঠান নিয়ে প্রতিবেদন লিখেছেন সাদিকা রুমন। রাজধানীতে শিশু শিক্ষার একটু ভিন্ন মাত্রার প্রতিষ্ঠান ‘ইচ্ছেতলা’। এই প্রতিষ্ঠানের উদ্যোক্তা অভিনেত্রী আফসানা মিমি সাক্ষাৎকারে জানিয়েছেন এ স্কুলের নানা বিষয়। শিশুদের স্কুল পালানো মন নিয়ে ‘স্কুলভীতি: হতে পারে যে কোনো সময়’ শীর্ষক রচনা লিখেছেন জাতীয় মানসিক স্বাস্থ্য ইনস্টিটিউটের মনোরোগ বিশেষজ্ঞ ডা. শাহানা পারভিন। শিশুদের জন্য সৃজনশীল প্রকাশনা প্রতিষ্ঠান ইকরিমিকরি- এর কর্ণধার মাহবুবুল হক সাক্ষাৎকারে বলেছেন শিশুদের শিক্ষা ও শিশুতোষ প্রকাশনার নানা প্রসঙ্গ নিয়ে। রয়েছে শিশু শিক্ষা নিয়ে কিছু মনোসামাজিক বিশ্লেষণ। শিশুদের প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা কেমন হবে’ এ বিষয়ে কথা বলেছেন ভিকারুননিসা নুন স্কুল অ্যান্ড কলেজের শিক্ষক সংগীতা ইমাম, অভিভাবক মামুনুর রশীদ, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেলের মনোরোগবিদ্যা বিভাগের বিভাগীয় প্রধান অধ্যাপক ডা. ঝুনু শামসুন্নাহার, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেলের ফিজিক্যাল মেডিসিন অ্যান্ড রিহ্যাবিলিটেশন বিভাগের অধ্যাপক ডা. এ কে এম সালেক, নাট্যশিল্পী ত্রপা মজুমদার, মনোবিজ্ঞানী মেহতাব খানম এবং জাতীয় মানসিক স্বাস্থ্য ইনস্টিটিউটের প্রাক্তন পরিচালক প্রফেসর ডা. গোলাম রব্বানী।

ফেব্রুয়ারিতে প্রকাশিত এ সংখ্যায় শিশু শিক্ষা ছাড়াও রয়েছে ভ্যালেন্টাইন নিয়ে বিশেষ আয়োজন। এতে ‘ভালোবাসার রসায়ন’ নামে একটি প্রবন্ধ লিখেছেন মনোচিকিৎসক ও কথাসাহিত্যিক মোহিত কামাল। ডা. মুনতাসির মারুফ লিখেছেন ‘ভালোবাসা: শরীর না মন?’। ‘সখী ভালোবাসা কারে কয়’ লিখেছেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেলের মনোরোগবিদ্যা বিভাগের সহকারী অধ্যাপক সেলিনা ফাতেমা বিনতে শহিদ। ভালোবাসার কথা উঠলে যৌনতার কথাও উঠে আসে। যৌনস্বাস্থ্য নিয়ে ‘প্রেম-ভালোবাসা এবং শরীর’ শিরোনামে লিখেছেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেলের মনোরোগবিদ্যা বিভাগের কনসালটেন্ট ডা. এস এম আতিকুর রহমান। ‘যত বেশি ভালোবাসা তত বেশি ঘৃণা’ শীর্ষক রচনাটি একটি গবেষণাপত্র থেকে অনুবাদ করেছেন চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মনোরোগবিদ্যা বিভাগের সাইকিয়াট্রি (এমডি) ডা. মো. সালেহ উদ্দীন। মাহজাবিন আরা শান্তা লিখেছেন ‘সম্পর্ক সতেজ রাখুন’।

এসব বিষয়ের বাইরেও রয়েছে বেশ কিছু প্রতিবেদন ও প্রবন্ধ। এসবও কোনো না কোনোভাবে প্রচ্ছদ প্রতিবেদনের সাথে সংশ্লিষ্ট। ‘ঋতুস্রাব বন্ধ সমস্যা ও সমাধানের কথা’ লিখেছেন শমরিতা হাসপাতালের সাইকিয়াট্রি (এমডি) ডা. নাফিয়া ফারজানা চৌধুরী। ‘প্রবীণ মানে জীবনের যতিচিহ্ন নয়’ শিরোনামে প্রবীণদের মানসিক স্বাস্থ্য নিয়ে লিখেছেন জাতীয় মানসিক স্বাস্থ্য ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালের ডা. নিলুফার আক্তার জাহান। ‘মাদকাসক্তি প্রতিরোধে পরিবারের ভূমিকা’ শীর্ষক রচনা লিখেছেন ডা. জসীম চৌধুরী। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেলের মনোরোগবিদ্যা বিভাগের ডা. পঞ্চানন আচার্য্য লিখেছেন সমাজে প্রচলিত নানা কুসংস্কার নিয়ে ‘যতসব কুসংস্কার’। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেলের মনোরোগবিদ্যা বিভাগের সাইকিয়াট্রি (এমডি) ডা. তৈয়বুর রহমান রয়েল লিখেছেন ‘জীবাণুতত্ত্ব অদ্ভুত মানসিক রোগ চিকিৎসা’। ভুটানের মানসিক স্বাস্থ্যসেবার চিত্র তুলে ধরেছেন সেখানকার মনোরোগের অধ্যাপক ডাম্বার কুমার নিরলা। ‘ব্লু হোয়েল ও ইন্টারনেট আসক্তি: সতর্কতা, ফেরার উপায়’ রচনায় জরুরি নানা পরামর্শ দিয়েছেন ডা. আশেকুর রহমান শিহাব। ‘নিউটনের মনস্তত্ত্ব’ লিখেছেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেলের মনোরোগবিদ্যা বিভাগের  সাইকিয়াট্রি (এমডি) ডা. এস এম ইয়াসির আরাফাত। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মনোবিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষক ফিরোজ শরিফ লিখেছেন ‘আত্মহত্যা: গণমাধ্যমে প্রচার কেমন হওয়া উচিত’।

এছাড়া রয়েছে মনের খবর কুইজ, সাইকিয়াট্রিস্টস এসোসিয়েশনের দ্বি-বার্ষিক অধিবেশনের সংবাদ, মনের খবর- এর প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে অনুষ্ঠিত ‘মানসিক স্বাস্থ্য: গণমাধ্যমের ভূমিকা’ শীর্ষক গোলটেবিল বৈঠকের সংবাদ। প্রশ্নোত্তর পর্বে রয়েছে বিচিত্র প্রশ্ন ও পরামর্শ। বাসের ধাক্কা খেয়ে ভীতি, নিজেকে উপস্থাপন করতে না পারা, ভয়ঙ্কর স্বপ্নে দেখা, আর্মিতে নিয়োগের আগে মানসিক রোগ পরীক্ষা করা হয় কিনা, অল্পতেই রেগে যাওয়া ইত্যাদি বিষয়ে প্রশ্নের উত্তর দিয়েছেন দেশের বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকরা।

মনের খবর- এর এই সমৃদ্ধ সংখ্যাটি আপনি সংগ্রহ করতে পারবেন মাত্র ৫০ টাকার বিনিময়ে।