কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা কি আত্মহত্যা প্রতিরোধ করতে পারবে? 1

কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা কি আত্মহত্যা প্রতিরোধ করতে পারবে?

যেসব ব্যক্তির জীবনে আত্মহত্যার সম্ভাবনা আছে, তাদের বিষয়ে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা ডাক্তারদের সর্তক করবে। এমনই এক প্রযুক্তি তৈরির চেষ্টা করছেন ওয়েলশ বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকগণ।

প্রায় ৩৫০ জনের মত মানুষ প্রতিবছর ওয়েলশে আত্মহত্যায় মারা যায়। এই সংখ্যাটি ২৫ বছরের নিচের বয়সীদের মধ্যে বেশি।

সয়ানসি বিশ্ববিদ্যালয়ের (Swansea University) একদল গবেষক পেয়েছেন যে ৮০ শতাংশ মানুষ যারা আত্মহত্যা করেছে, তারা বছরে অন্তত একবার তাদের ‘জিপি’ দেখেছে।

যারা আত্মহত্যার কথা ভাবছে, তাদের কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তায় চিহ্নিত করা যাবে।

গবেষকরা তথ্য সংগ্রহের জন্য বিশ্ববিদ্যালয়ের সেল ড্যাটাব্যাককে ব্যবহার করেছেন। সেখানে প্রায় দুই হাজারের মত আত্মহত্যার তথ্য জমা আছে। যা কিনা ২০০১ থেকে ওয়েলশের স্ব-নির্যাতিত ও অনির্দিষ্ট অভিপ্রায় মৃত্যুর একটি ইলেক্ট্রনিক ডাটাবেস।

মানসিক স্বাস্থ্য তথ্যবিষয়ক ও এআই বিশেষজ্ঞ ডা. ডেল পোজো বানোস বলেন, দলটি এমন এক অ্যালগরিদম তৈরি করতে চায় যা নিয়মিত ভাবে স্বাস্থ্য সংক্রান্ত তথ্য বিশ্লেষন করে আত্মহত্যা করতে চাওয়া ব্যক্তিদের চিহ্নিত করতে পারবে।

ডা. বানোস প্রাথমিক ফলাফলের বর্ণনা দেন যে, এটি প্রায় ৭৫% শতাংশ যথাযথের প্রমাণ দেয়। এই দলটি এখন ধীরে ধীরে এই অ্যালগরিদমকে আরো জটিল করার চেষ্টা চালাচ্ছে যাতে করে এটি আরো সঠিকভাবে কাজ করতে পারে।

ওয়েলশ সরকারের আত্নহত্যা প্রতিরোধ কমিটির জাতীয় উপদেষ্টা ও দলের প্রধান অধ্যাপক অ্যান জন বলেন, ‘কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার আত্মহত্যা প্রতিরোধের ক্ষেত্রে বিশাল সম্ভাবনা আছে এবং এটি একটি চাঞ্চল্যকর অগ্রগতি’।

যাইহোক, আমরা এখন এটি ব্যবহারের প্রাথমিক অবস্থায় আছি।

 

তথ্যসূত্র: বিবিসি নিউজ।
অনুবাদটি করেছেন মাঈশা তাহসিন অর্থী।