বুদ্ধি বিষয়ক নানা লেখায় সমৃদ্ধ মনের খবর ফেব্রুয়ারি সংখ্যা

বুদ্ধি বিষয়ক নানা লেখায় সমৃদ্ধ মনের খবর ফেব্রুয়ারি সংখ্যা

মানসিক স্বাস্থ্য বিষয়ক দেশের অন্যতম বহুল পঠিত মাসিক ম্যাগাজিন মনের খবর এর ফেব্রুয়ারি সংখ্যা বাজারে এসেছে। অন্যান্য সংখ্যার মত এবারের সংখ্যাটিও একটি বিশেষ বিষয়ের উপর প্রাধান্য দিয়ে সাজানো হয়েছে। আর এবারের সংখ্যায় প্রাধান্য পাওয়া বিষয়টি হল- বুদ্ধি। এবারের ম্যাগাজিনে বুদ্ধি বিষয়ক না লেখার পাশাপাশি মানসিক স্বাস্থ্য সচেতনতা ও মানসিক স্বাস্থ্যের বিভিন্ন দিক নিয়ে লিখেছেন দেশের খ্যাতনামা মনোরোগ বিশেষজ্ঞগণ।

যা রয়েছে “মনের খবর” ফেব্রুয়ারি সংখ্যায়–

বুদ্ধি: ভিন্ন পরিবেশে ভিন্ন প্রকাশ”-শিরোনামে  প্রচ্ছদ প্রতিবেদন লিখেছেন সিরাজগঞ্জ মেডিক্যাল কলেজ এর মনোরোগবিদ্যা বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ও মনোরোগ বিশেষজ্ঞ ডা. ওয়ালিউল হাসনাত সজীব

বুদ্ধি প্রতিবন্ধী: মন বোঝা জরুরী”-শিরোনামে আরো একটি প্রচ্ছদ প্রতিবেদন লিখেছেন চট্রগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ এর মনোরোগবিদ্যা বিভাগের প্রধান ডা. পঞ্চানন আর্চায্য

বুদ্ধিমত্তা ও বুদ্ধির মাত্রা: রকমফের ও ব্যবহার” শিরোনামে প্রচ্ছদ প্রতিবেদন বিভাগে লিখেছেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব বিশ্ববিদ্যালয়ের চাইল্ড অ্যান্ড অ্যাডোলেসেন্ট সাইকিয়াট্রিস্ট অধ্যাপক ডা. নাহিদ মাহজাবিন মোর্শেদ

বুদ্ধি কী?: কোন প্রাণীর বুদ্ধি কত?” শিরোনামে আরো একটি প্রচ্ছদ প্রতিবেদনে রয়েছে বন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের রেসিডেন্ট ডা. কৃষ্ণ রায় এর লেখা।

একই বিভাগে “নারী-পুরুষ-জাতি কার বুদ্ধি কেমন?” শিরোনামে রয়েছে বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল এর মনোরোগ বিশেষজ্ঞ ডা. শাহরিয়ার ফারুক অনিক এর লেখা।

স্মরণশক্তির বিকাশ: কিছু পদ্ধতি” শিরোনামে বিশেষ আয়োজন বিভাগে রয়েছে কথাসাহিত্যিক ও মনোরোগ বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক ডা. মোহিত কামাল এর লেখা।

মনের খবর ফেব্রুয়ারি সংখ্যায় রয়েছে কথা সাহিত্যিক শাহীন আখতার এর সাক্ষাৎকার।

বুদ্ধি প্রতিবন্ধী শিশুদের ভাষা সমস্যা প্রকাশ ও বিশ্লেষণে সীমাবদ্ধতা” শিরোনামে মনোবিজ্ঞান বিভাগে লিখেছেন চিকিৎসা ভাষাবিদ ও মনোরোগ বিশেষজ্ঞ ডা. ফাহমিদা ফেরদৌস

শারীরিক রোগ বিভাগে “যেসব কারণে বুদ্ধির সমস্যা তৈরি হয়” শিরোনামে লিখেছেন মানসিক রোগ বিশেষজ্ঞ ডা. জেসমিন আখতার

ঢাকা কমিউনিটি হাসপাতাল এর মনোরোগবিদ্যা বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ডা. সৃজনী আহমেদ  মানসিক রোগ চিকিৎসা বিভাগে লিখেছেন “বুদ্ধিপ্রতিবন্ধিতার চিকিৎসা- কতটুকু সম্ভব: কার কী ভূমিকা” শিরোনামে।

আবেগীয় বুদ্ধিমত্তা: কীভাবে বাড়াবেন নিজের ও অন্যের আবেগ বোঝার ক্ষমতা” শিরোনামে শিশুমন বিভাগে লিখেছেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্লিনিক্যাল সাইকোলজিস্ট সেলিনা ফাতেমা বিনতে শহীদ

মাদকাসক্তি: বুদ্ধি ও যুক্তি সবই কমিয়ে দেয়”– শিরোনামে মাদকাসক্তি বিভাগে রয়েছে ফরিদপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল এর মনোরোগ বিশেষজ্ঞ ডা. মেজবাউল খাঁন এর একটি লেখা।

বুদ্ধি প্রতিবন্ধীদের যৌন চাহিদা: গুরুত্ব দিন, করণীয় বুঝিয়ে দিন”-শিরোনামে যৌনস্বাস্থ্য-সম্পর্ক বিভাগে লিখেছেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের মনরোগবিদ্যা বিভাগের কনসালটেন্ট ডা. এস এম আতিকুর রহমান

সুষম খাদ্য ও ব্যায়ামে বুদ্ধি বাড়ে”– শিরোনামে গবেষণা বিভাগে লিখেছেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের রেসিডেন্ট এমডি (চাইল্ড অ্যান্ড অ্যাডোলসেন্ট সাইকিয়াট্রি) ডা. সাদিয়া আফরিন

মনস্তত্ত্ব বিভাগে আব্রাহাম লিংকন’কে নিয়ে লিখেছেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের রেসিডেন্ট এমডি ডা. সৌবর্ণ রায় বাঁধন

র‌্যাগিং বিষয়ে মনোসামাজিক বিশ্লেষণ বিভাগে কথা বলেছেন মানসিক রোগ বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক ডা. জ্যের্তিময় রায়, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক স্বাধীন সেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সহকারি অধ্যাপক উম্মে কুলসুম, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়েরে শিক্ষার্থী মেরাজী আশা ঐশী, চট্রগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী মোহাম্মাদ তাওহীদ এলাহী এবং অভিভাবক নাজমা রহমান

বিশেষ প্রতিবেদন বিভাগে “প্রতিবন্ধিতার ধরন: সরকারি-বেসরকারি সুযোগ সুবিধা”-শিরোনামে লিখেছেন প্রেসিডেন্ট আব্দুল হামিদ মেডিক্যাল কলেজ এর সহকারী অধ্যাপক ডা. মাহ্জাবিন আফতাব সোলায়মান

দেশের খবর এর পাশাপাশি প্রতিসংখ্যার মত এই সংখ্যায়ও বিভিন্ন জটিল বিষয়ে পাঠকের প্রশ্নের উত্তর দিয়েছেন দেশের খ্যাতনামা মানসিক রোগ বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক ডা. এম এ সালাম, অধ্যাপক ডা. ওয়াজিউল আলম চৌধুরী, অধ্যাপক ডা. মহাদবে চন্দ্র মন্ডল, অধ্যাপক ডা. সালাহ্‌উদ্দিন কাউসার বিপ্লব, ডা. মো. মহসিন আলী শাহ্ এবং অধ্যাপক ডা. এ এইচ এম মোস্তাফিজুর রহমান।

এছাড়াও মনের খবর ফেব্রুয়ারি সংখ্যায় পাঠকরা টিপস বিভাগে পাবেন “কীভাবে করবেন বুদ্ধির ব্যবহার” শিরোনামে মাহজাবিন শান্তা’র লেখা।

বুদ্ধি বিষয়ক এই সংখ্যাটি এখন বাজারে পাওয়া যাচ্ছে, পাঠকরা চাইলে সংগ্রহ করতে পারবেন সংখ্যাটির পিডিএফ কপিও।

পিডিএফ পেতে ও ম্যাগাজিন প্রাপ্তিস্থান জানতে নিচের লিংক দেখুন :

ম্যাগাজিন প্রাপ্তিস্থান: https://www.monerkhabor.com/stall/

পিডিএফ: https://www.monerkhabor.com/print-pdf/

সরসারি পেতে যোগাযোগ করুন: ০১৭৯৭২৯৬২১৬ নম্বরে।