মূল পাতা / যৌন স্বাস্থ্য / দম্পতিদের যৌনাকাঙ্ক্ষা কমিয়ে দিচ্ছে স্মার্ট ফোন

দম্পতিদের যৌনাকাঙ্ক্ষা কমিয়ে দিচ্ছে স্মার্ট ফোন

কিন্তু সাম্প্রতিক গবেষণার ফলাফলে উঠে এসেছে, যৌন জীবনে নিরাসক্তি ও বিছানায় অনীহা বিশ্বের প্রায় সব দেশের দম্পতিদের মধ্যেই দেখা দিচ্ছে। আর তার মূলে রয়েছে স্মার্টফোন!

মূল সমীক্ষাটি যুক্তরাষ্ট্রকে কেন্দ্র করে হলেও এই সমীক্ষার সঙ্গে সহমত পোষণ করেছেন ভারতের মনস্তত্ত্ববিদরাও। সম্প্রতি এক মার্কিন তথ্য-প্রযুক্তি সংস্থার গবেষণায় উঠে এসেছে এমনই চমকপ্রদ তথ্য!

লিভ ইন হোক বা বিবাহিত সম্পর্ক— সব ক্ষেত্রেই যৌন জীবনে বড় বাধা হয়ে দাঁড়াচ্ছে শোবার ঘরেও স্মার্টফোনের হাতছানি। আর সোশ্যাল মিডিয়ার এই মোহপাশ কেটে সঙ্গীর দিকে মন দেওয়ার সময়ই থাকছে না অনেকেরই!

এমনকি, সদ্য বিবাহিতরাও বাদ নন এই তালিকা থেকে। ফলে ‘কোয়ালিটি টাইম’-এর হাহাকার বাড়ছে। তৈরি হচ্ছে নানা সামাজিক ও সাংসারিক জটিলতা।

যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন প্রদেশ থেকে প্রায় দুই হাজার দম্পতির ওপর সমীক্ষা চালিয়ে দেখা যায়, তাদের প্রায় তিন-চতুর্থাংশই একান্ত নিজস্ব সময়ও রতিক্রীয়ার চেয়ে বেশি ব্যস্ত থাকেন মোবাইল ফোনে। শুধু তা-ই নয়, নারী-পুরুষ নির্বিশেষ অধিকাংশের দাবি, ঘুমোতে যাওয়ার আগে তাদের প্রেমিক বা জীবনসঙ্গীর মুখ নয়, মোবাইল দেখেই চোখ বোজেন তারা।

এমনকি, তাদের কারো কারো একই বাড়িতে থেকেও পরস্পরের সঙ্গে যোগাযোগের মাধ্যম হয়ে উঠছে সাধের স্মার্টফোনটি। প্রয়োজনীয় কথা বা তথ্য চালান হচ্ছে সোশ্যাল সাইটের মাধ্যমেই!

পরীক্ষায় অংশ নেওয়া প্রায় ৫৫ শতাংশের মতামত, কেবল যৌন জীবনই নয়, অত্যধিক ফোন ব্যবহারের কারণেই নিজেদের জীবনসঙ্গীর সঙ্গে স্বাভাবিক সম্পর্কও ব্যাহত হচ্ছে। ৩৫ শতাংশ জানিয়েছে, মোবাইল আসক্তির কারণে তাদের মধ্যে বিশেষ কোনো শারীরিক সম্পর্ক নেই বহু দিন ধরেই।