যৌনতা নিয়ে ভ্রান্ত প্রচার ফুটপাতে ঔষধ বিক্রির ফাঁদ

যৌনতা নিয়ে ভ্রান্ত প্রচার ফুটপাতে ঔষধ বিক্রির ফাঁদ

যতই গুগুল থাকুক, ইউটিউব থাকুক, জ্ঞান যতই হাতের নাগালে চলে আসুক না কেন যৌন বিষয়ে প্রচলিত এই ধারণাগুলো যাচ্ছে না। ‘লিঙ্গ তীরের মতো সোজা আর বীর্য দধির মতো ঘন হবে।’ একবিংশ শতাব্দীতে যোগাযোগের এই তুড়ীয় যুগে এসেও এমন কথা শুনতে হচ্ছে। কোনো গ্রামগঞ্জের হাটে নয় খোদ ঢাকা শহরে এই কথা বলে ঔষধ বিক্রি করা হচ্ছে যৌনরোগের। কারণ কথাগুলো বিশ্বাস করার লোক আছে।

গবেষণায় দেখা গেছে, স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে স্বামীরা অর্থাৎ পুরুষেরা তুলনামূলক বেশি আক্রান্ত হন যৌনস্বাস্থ্য সংক্রান্ত ভুল ধারণার দ্বারা। তাই বলে একই সমাজে বসবাস করা নারীরা যে যৌন কুসংস্কারমুক্ত এমনটা ভাবার কোনো কারণ নেই। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের সাইকিয়াট্রি সেক্স ক্লিনিকের করা একটি গবেষণায় যৌনস্বাস্থ্য নিয়ে কী কী ভুল ধারণা আমাদের সমাজে প্রচলিত আছে সেসব বের হয়ে এসেছে। লিঙ্গের আকার আকৃতি থেকে শুরু করে নারী-পুরুষের স্বাভাবিক যৌন প্রতিক্রিয়া এ সব কিছুতেই বিভিন্ন ধরনের ভুল ধারণা মানুষের মনে গেঁথে আছে। এসব ভুল ধারণার কারণে একদিকে যেমন যৌন সম্পর্ক ব্যাহত হচ্ছে অন্যদিকে তেমনি শরীরের স্বাভাবিক শারীরবৃত্তীয় ক্রিয়া-প্রতিক্রিয়াকে রোগ মনে করে চিকিৎসা করাতে যেয়ে আর্থিক ক্ষতির শিকার হচ্ছে কুসংস্কারাচ্ছন্ন মানুষ। অকারণেই ভেঙে যাচ্ছে দাম্পত্যসম্পর্ক। যৌন অদক্ষতাকে অক্ষমতা ভেবে বিবাহ বিচ্ছেদের কাগজে সিগনেচার করতে বাধ্য হচ্ছেন কোনো কোনো পুরুষ।

গবেষণায় যৌন স্বাস্থ্য সংক্রান্ত যে ভুল ধারণাগুলো চিহ্নিত করা হয়েছে সেগুলো হলো :

লিঙ্গের আকার আকৃতি
অনুত্তেজিত অবস্থায় সাধারণত লিঙ্গকে নরম, শিথিল, ছোট দেখায়। উত্থিত অবস্থায় যে আকারে দেখা যায় সেটাই লিঙ্গের সঠিক আকার। ভারতীয় উপমহাদেশের বেশিরভাগ পুরুষের উত্থিত অবস্থায় লিঙ্গের আকার সাড়ে তিন থেকে সাড়ে চার ইঞ্চি। দেখা যায় চার ইঞ্চি বা তার কম হলেই অনেকে ঘাবড়ে যান। ভাবতে থাকেন তার লিঙ্গের আকার ছোটো। এই নিয়ে তার দুশ্চিন্তার আর শেষ নেই। আত্মবিশ্বাস হারিয়ে ফেলেন। আত্মবিশ্বাস যৌন সক্ষমতার সঙ্গে ওতপ্রোতভাবে জড়িত। আত্ববিশ্বাস কমে গেলে যৌন সক্ষমতাও কমে যায়।

বীর্যের ঘনত্ব
যৌন ক্ষমতার সাথে যদিও বীর্যের ঘনত্বের কোনো সম্পর্ক নেই তবু অনেকেরই ধারণা বীর্য পাতলা হয়ে যাওয়া যৌন ক্ষমতা বা শক্তি কমে যাওয়ার লক্ষণ। বীর্যের সাথে সম্পর্ক প্রজননের। বীর্যের গুণগত পরিবর্তনের সাথে একজন পুরুষের বাবা হওয়ার সম্ভাবনা জড়িত। বীর্যে কী পরিমাণ শুক্রানু আছে? বীর্যে শুক্রানুর বেঁচে থাকার পরিবেশ কেমন? শুক্রানুগুলোর নড়াচড়া করার ক্ষমতা কেমন? এসব প্রশ্নের ওপর ভিত্তি করে বীর্যের মান। বীর্যের মানের ওপর নির্ভর করে বাবা হওয়ার সক্ষমতা।

স্বপ্নদোষ
স্বপ্নদোষ একটি স্বাভাবিক শারীরবৃত্তীয় যৌন ঘটনা যা বয়ঃসন্ধিকাল থেকে ঘটতে শুরু করে। সাধারণত ঘুমের মধ্যে এটি হয়। কিন্ত ভুল ধারণার কারণে সেই স্বাভাবিক যৌন ঘটনাই নেতিবাচক প্রভাব ফেলতে শুরু করে। অনেকেই এভাবে বীর্য স্খলনকে যৌনস্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর মনে করেন। এতে আত্মবিশ্বাস কমে যায়।

হস্তমৈথুন
হস্তমৈথুন নিয়ে অনেক রকমের ভুল ধারণা আছে। হস্তমৈথুনে যৌন ক্ষমতা কমে যায়, শরীর দুর্বল হয়ে যায়, দ্রুত বীর্যপাত হয়, লিঙ্গের উত্থানজনিত সমস্যা দেখা দেয়, বীর্য পাতলা হয়ে যায়। হস্তমৈথুন থেকে যৌন মিলনের পার্থক্য হলো একটি একাকী যৌন আচরণ, অপরটি সঙ্গীর সাথে যৌন আচরণ। দীর্ঘদিন স্বামী-স্ত্রী যৌন মেলামেশা করলে যদি যৌন ক্ষমতা কমে না যায় তবে হস্তমৈথুন করলে কেন কমে যাবে? এই যুক্তি হস্তমৈথুন সংক্রান্ত ভুল ধারণায় আক্রান্ত পুরুষদের মনে কাজ করে না। এভাবে ভেবে দেখতে বললেও তারা এভাবে ভেবে দেখতে চান না। তারা এই নিয়ে দুশ্চিন্তা করতেই থাকেন। তাদের এ ধরনের দুশ্চিন্তার কারণে আত্মবিশ্বাস কমে গিয়ে যৌন সমস্যা দেখা দিলে তারা পুনরায় হস্তমৈথুনকেই দোষারোপ করেন।

যৌন ইচ্ছা
যৌন ইচ্ছা নিয়ে যে ভুল ধারণাটি আমাদের সমাজে সবচেয়ে বেশি তা হলো, সঙ্গীর যৌন সমস্যা কমে যাওয়া বা না থাকার মানেই হলো সঙ্গীর অন্য কারো সাথে সম্পর্কে জড়িয়ে পড়া। ফলে যৌন ইচ্ছা কমে গেলেও কেউ তা স্বীকার করতে চান না ভুল বোঝার ভয়ে। সঙ্গী পছন্দ না হলেও যৌন ইচ্ছা কমে যেতে পারে। কিন্তু সেটাও কেউ সহজে মুখ ফুটে বলতে পারেন না।

যৌন প্রতিক্রিয়া
যৌন উত্তেজনার এক পর্যায়ে পুরুষের লিঙ্গ থেকে একটি তরল পদার্থ বেড়িয়ে আসে যাকে প্রিইজ্যাকুলেটরি ফ্লুইড বলে। অনেক পুরুষই এই তরলকে ভুল করে বীর্য ভাবেন। নারীর যৌন উত্তেজনার সময়ও এ ধরনের তরল বের হয়। যাকে চরম পুলকের লক্ষণ মনে করা হয়। আসলে দুটোই ভুল। প্রি-ইজ্যাকুলেটরি ফ্লুইড বা লাভ জুস বাংলায় যাকে বলা হয় কামরস যৌন প্রতিক্রিয়ার একটি গুরুত্বপূর্ণ চিহ্নমাত্র, যৌন প্রতিক্রিয়ার শেষ নয়। যৌনতাহীন একটি স্বামী-স্ত্রীর সম্পর্ক দীর্ঘদিন ধরে চলছে-এমন করে ভেবে দেখুন তাহলেই বুঝবেন যৌনতা দাম্পত্য সম্পর্কের জন্য কতটা গুরুত্বপূর্ণ।

এটুকু বোঝার জন্য বিভিন্ন গবেষণা কর্মের স্ট্যাটিসটিক্যাল রিপোর্টের প্রয়োজন নেই। যখন শুধুমাত্র যৌন বিষয়ে অজ্ঞানতার দরুন একটি সুস্থ সবল স্বাভাবিক দম্পতি সুন্দর যৌন সম্পর্ক উপভোগে ব্যর্থ হয় তখন যৌন বিষয়ে বিজ্ঞানসম্মত সঠিক জ্ঞান দানই তাদের জন্য প্রধান চিকিৎসা ।

  • যা করণীয়
    আপনার ভুল ধারণাটিকে চিহ্নিত করুন।
  •  যৌনতা সংক্রান্ত ভুল ধারণাটিকে চিহ্নিত করতে হলে আপনার এ সংক্রান্ত দুশ্চিন্তাটিকে আগে চিহ্নিত করুন।
  • প্রশ্ন তুলুন আপনি যা ভাবছেন সেটাই সঠিক কিনা।
  • সঠিক উত্তর পেতে হলে এ সম্পর্কে পড়ুন ।
  • যা পড়ছেন ঠিক পড়ছেন কি না নিশ্চিত হোন।
  • নিশ্চিত হতে নিকটস্থ চিকিৎসকের পরামর্শ নিন।
  • এ বিষয়ে আপনার সঙ্গীকেও অন্তর্ভুক্ত করুন।

সূত্র: লেখাটি মনের খবর মাসিক ম্যাগাজিনে প্রকাশিত।

ট্যাগ্স: