নারীরা যৌন মিলনের আগ্রহ হারিয়ে ফেলতে পারেন যেসব কারণে 1

নারীরা যৌন মিলনের আগ্রহ হারিয়ে ফেলতে পারেন যেসব কারণে

বেশ কিছুদিন হল স্বামীর সঙ্গে শারীরিক সম্পর্ক স্থাপন করতে বিশেষ উৎসাহবোধ করে না সুপর্ণা। স্বামীর কাছে টানতে চাইলেও বিরক্ত লাগে, ইচ্ছে করে না। যৌনতার প্রতি এই অনাগ্রহ এক সময় প্রভাব ফেলে বিবাহিত সম্পর্কের উপরে। অবশেষে কাউন্সেলরের দ্বারস্থ হয় তারা…

সুপর্ণা একা নয়, বহু মেয়েই একটা সময় শারীরিক সম্পর্কের প্রতি আগ্রহ হারিয়ে ফেলেন। তার নানা কারণ রয়েছে। পুরোনো কোনও অস্বস্তিকর যৌনতার স্মৃতি, অর্গাজ়ম না হওয়া, স্ট্রেস, সব মিলিয়ে সেক্সের ইচ্ছেটাই কমে যায় আর তার অবধারিত প্রভাব সম্পর্কের উপরে পড়ে। পার্টনারের সঙ্গে শারীরিক আর মানসিক ঘনিষ্ঠতা, দু’ ক্ষেত্রেই ফাঁক তৈরি হয়। একটা সময় কী করলে সেই ফাঁক ভরাট হবে বুঝে উঠতে পারেন না কেউই!

কিন্তু কেন মেয়েদের যৌনতার প্রতি এই অনাগ্রহ তৈরি হয়? আসুন দেখে নেওয়া যাক!

ওষুধপত্র
আপনার যদি শারীরিক কোনও অসুস্থতা থাকে যার জন্য নিয়মিত আপনাকে ওষুধ খেতে হয়, তা হলে তার জের আপনার লিবিডোর উপরেও পড়তে পারে। যাঁরা নিয়মিত ডিপ্রেশনের ওষুধ খান, তাঁদের মধ্যে এই সমস্যাটা দেখা যায়। দীর্ঘদিন ওরাল কনট্রাসেপটিভ খেলেও একই সমস্যা হতে পারে। ওষুধের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ার কারণে লিবিডো কমে যাচ্ছে বলে মনে হলে চিকিৎসকের সঙ্গে কথা বলুন। তিনি সাহায্য করতে পারেন।

যৌন অস্বাচ্ছন্দ
পার্টনার কি এমন কোনও পজ়িশনে সেক্স চান যার সঙ্গে আপনি স্বচ্ছন্দ নন? পেনিট্রেশনের সময় কি আপনার ব্যথা হয়? চেষ্টা করেও অর্গাজ়মে পৌঁছোতে পারেন না? এ সব সমস্যার কারণে কিন্তু যৌনতার প্রতি আগ্রহ কমে যেতে পারে। পার্টনারের সঙ্গে কথা বলুন। কোন কোন বিষয়গুলোয় আপনার অস্বস্তি হয় তাঁকে জানান। তারপরেও সমস্যা না কমলে দু’জনে মিলে স্পেশালিস্টের সাহায্য নিন।

সম্পর্কের সমস্যা
প্রতিটি সম্পর্কেই কখনও না কখনও ওঠাপড়া আসতে পারে, তা কাটিয়ে বেরিয়ে আসতে পারলে মজবুত হয় সম্পর্কের বাঁধনটাই। আপনার আর আপনার পার্টনারের মধ্যে যদি সেই বিশ্বাস আর নির্ভরতা থাকে, তা হলে সমস্যা কাটিয়ে ওঠা বড়ো ব্যাপার নয়। কিন্তু যদি আপনাদের মধ্যে যোগাযোগের অভাব থাকে, মতের অমিল থাকে, আস্থার অভাব থাকে, তা হলে কিন্তু আপনাদের যৌন সম্পর্ক ক্ষতিগ্রস্ত হতে বাধ্য। দ্রুত পারস্পরিক সমস্যা কাটিয়ে উঠুন যাতে আপনাদের সম্পর্কটা অটুট থাকে। দরকারে রিলেশনশিপ কাউন্সেলরের পরামর্শ নিন।

ট্যাগ্স: